কালিয়াকৈরে ভূয়া দলিল দিয়ে গুচ্ছ গ্রামের ভূমিহীনদের জমি জবর দখলের চেষ্টার অভিযোগ

আলমগীর হোসেন, কালিয়াকৈর প্রতিনিধি: গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার ভান্নারা গুচ্ছ গ্রামের ২০টি ভূমিহীন পরিবারের ৬.৬৮ শতাংশ জমি জবর দখলের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে।

jomi-dokhol

জানা যায়, কালিয়াকৈরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) গুচ্ছ গ্রামের ওই ২০ পরিবারকে ২০/৯২ ভিপি তারিখ – ১০/০৫/১৯৯২ইং স্বারক মুলে লীজ প্রদান করে। সেই মুলে ওই জমিতে তারা ঘর বাড়ী তৈরি করে দীর্ঘ দিন ধরে বসবাস করে আসছে।

গত রবিবার (২৬ ফেব্রুয়ারী) ওই জমির মালিকানা দাবী করে কয়েক জন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধার নামে সাইবোর্ড লাগিয়ে দেয়া হয়। পরে রাতের আধারে সাইনবোর্ড প্রদান কারীদের পক্ষ থেকে জমিতে বসবাস কারীদের বাড়ীঘর ভাংচুর করা হয় এবং ওই জমিতে জোড় পূর্বক নতুন ঘরবাড়ী তৈরি করা চেষ্টা করা হয়।

এ ঘটনায় গুচ্ছ গ্রামের পক্ষ থেকে গাজীপুর আদালতে একটি মামলা দায়ের করলে আদালত কালিয়াকৈর থানাকে ওই জমিতে ১৪৪ দ্বারা জারির নির্দেশ প্রদান করে। আদালতের নির্দেশ মোতাবেক গত ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ ইং তারিখে ১৪৪ দ্বারা জারি করে।

এ ব্যাপারে গুচ্ছ গ্রামের পরিচালক মোঃ তফিজ উদ্দিন জানান, জমিটি গুচ্ছ গ্রামের ২০ পরিবারের মধ্যে লীজ দেয়া হলে আমরা ভোগ দখল করে আসছি। হঠাৎ দুই ভূয়া দলিল তৈরি করে একটি ভূমি দস্যু চক্র ওই জমিটি জবর দখলের চেষ্টা করছে। গুচ্ছ গ্রামের পক্ষ থেকে ওই দলিলের বৈধতার জন্য তল্লাশী দেয়া হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ওই নাম ঠিকানা ও তারিখের কোন দলিল নেই জানিয়ে দেয়।

তিনি আরও জানান, গত ২৬ ফেব্রুয়ারী হঠাৎ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা নাম উল্লেখ করে ওই জমিতে একটি সাইন টাঙ্গিয়ে জমিটি জবর দখলের চেষ্টা করে ওই ভূমিদস্যু চক্র। এমনকি ওই জমিতে বসবাস কারীদের জোড় পূর্বক উচ্ছেদের চেষ্টাও করছে তারা। রাতের আধারে কয়েকটি ঘরবাড়ী ভাংচুর এবং গুচ্ছগ্রামের পরিবারের লোকজনকে নানা ভাবে হুমি প্রদান করে আসছে। পরে আদালতে পিটিশন মামলা দায়ের করলে আদালত ১৪৪ দ্বারা জারি করেছে।

এ ব্যাপারে সাইন বোর্ডে উল্লেখিত বায়না সূত্রে মালিক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক জানান, আমারা ওই জমি প্রকৃত মালিক। আমাদের জমির সঠিক কাগজপত্র ও খাজনা খারিজ ক্লিয়ার আছে। যদি কেউ দখল করার কথা বলে থাকে তাহলে তারা মিথ্যা বলেছে। আমরা কারো জমি দখল করিনি আমরা আমাদের জমিতেই আছি।

কালিয়াকের থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই) রাজা মিয়া সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, আদালতের নির্দেশে ওই জমিতে ১৪৪ দ্বারা জারি করা হয়েছে যাতে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটতে পারে।

কালিয়াকৈরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাফিয়া আক্তার শিমু সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, ওই জমি ভিপি সম্পত্তি। গুচ্ছ গ্রামের পক্ষ থেকে একটি অভিযোগ পেয়েছি। সরকারী সম্পত্তি কারও পক্ষে জবর দখল করার ক্ষমতা নাই। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।