কাঠগড়ায় নিশ্চুপ রায় শোনার পরেই ক্ষোভে ফুঁসে উঠে বদরুলের শ্লোগান ! (ভিডিও)

সময়ের কণ্ঠস্বর- বহুল আলোচিত কলেজছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিসকে হত্যাচেষ্টা মামলার একমাত্র আসামি শাবি ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত নেতা বদরুল আলমকে দণ্ডবিধির ৩২৬ ধারায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও দুই মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

রায় ঘোষণার সময় কাঠগড়ায় চুপচাপ থাকলেও কারাগারে নেয়ার সময় আদালত চত্বরে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত বদরুল চিৎকার করে বলতে থাকে ‘জন্ম বাংলায়, মরবো বাংলায়’ জয় বাংলা – ইত্যাদি স্লোগান দেন। এসময়  বদরুল চিৎকার করেই বলতে থাকে, ‘এই রায়ে আমার কিছুই হবে না।’

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত টানা আধাঘণ্টা সময় ধরে সিলেটের মহানগর দায়রা জজ মো. আকবর হোসেন মৃধা ৩০ পৃষ্ঠার দীর্ঘ রায় পড়ে শোনান। এসময় তিনি মামলার মোট ৩৭ সাক্ষীর মধ্যে ৩৪ জনই দ্রুত সময়ের মধ্যে সঠিকভাবে সাক্ষ্য দিয়ে বিচারিক কাজে সহায়তা করায় সাক্ষীদের ধন্যবাদ জানান।

এদিকে আদালতে আলোচিত এই মামলার রায় শুনতে সকাল থেকে আদালত চত্বরে কয়েক হাজার সাধারণ মানুষ জড়ো হন। রায় ঘোষণার পর তারা সন্তোষ প্রকাশ করে উচ্চ আদালতেও এ রায় বহাল থাকবে বলে আশা প্রকাশ করেন।

আলোচিত এ ঘটনার পাঁচ মাস পাঁচদিনের মাথায় বিচার কার্যক্রম শেষে আদালত থেকে এই রায় এলো। রায় ঘোষণার সময় আদালতের কাঠগড়ায় আসামি বদরুল উপস্থিত ছিলেন।

গত বছরের ৩ অক্টোবর এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে চাপাতি দিয়ে খাদিজাকে উপর্যুপরি কুপিয়ে গুরুতর আহত করে সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার মনিরজ্ঞাতি গ্রামের বাসিন্দা বখাটে বদরুল।

রায়ের প্রতিক্রিয়ায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মহানগর ও দায়রা জজ আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট মফুর আলী সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, আন্তর্জাতিক নারী দিবসে এ রায় নারীদের অধিকার ও সুরক্ষায় ভূমিকা রাখবে।

তবে আসামি বদরুলের আইনজীবী মো. সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী বলেন, এ রায়ের মাধ্যমে আমার মক্কেল ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। আমরা রায়ের নকল তোলার পরই উচ্চ আদালতে আপিল করবো।

মামলার বাদী খাদিজার চাচা আবদুল কুদ্দুস রায়ের সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, এ রায়ে আমরা খুশি। তিনি প্রধানমন্ত্রীসহ দেশবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, এ রায় যেন উচ্চ আদালতে বহাল থাকে। রায় বহাল থাকলে নারীর সুরক্ষা নিশ্চিত হবে এবং নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধ হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

রায়ের পর্যবেক্ষণে মহানগর দায়রা জজ মো. আকবর হোসেন মৃধা বলেন, আসামি পক্ষ যুক্তিতর্ক শুনানিকালে দাবি করেছিল খাদিজার সঙ্গে আসামি বদরুলের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। কিন্তু সাক্ষ্যপ্রমাণে তারা প্রেমের বিষয়টি প্রমাণ করতে পারেননি। এছাড়া প্রেমে প্রত্যাখ্যাত হলে এরকম নিষ্ঠুর, নির্মম ও নৃশংসভাবে হত্যার উদ্দেশে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে আহত করা কোনোভাবেই কাম্য হতে পারে না।

খাদিজার ওপর হামলার ভয়াবহতা বুঝাতে মামলার ৩৩ নম্বর সাক্ষী স্কয়ার হাসপাতালের নিউরো সার্জারি বিভাগের চিকিৎসক রেজাউস সাত্তারের সাক্ষ্যের ব্যাখা দিয়ে আদালত বলেন, আসামি খাদিজার শরীরের ১০টি স্থানে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মারাত্মক জখম করেছেন। এর মধ্যে তার মাথার ডান পাশের খুলির একটি অংশ ভাঙা পান চিকিৎসকরা। পরে তারা একাধিক অপারেশনের মাধ্যমে মাথার খুলির ওই অংশ প্রতিস্থাপন করেছেন।

আদালত রায়ে বলেন, এই ঘৃণিত অপরাধের জন্য দণ্ডবিধির ৩২৬ ধারায় আসামি বদরুলের সর্বোচ্চ সাজাই প্রাপ্য। তাই তাকে এ আইনে সর্বোচ্চ সাজা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হলো।

আদালত বলেন, মামলার অপর দুই ধারা ৩২৪ ও ৩০৭ ধারায় যেহেতু সাজার মেয়াদ কম তাই এ ধারাগুলোয় অপরাধ প্রমাণ হওয়ার পর তাকে আর সাজা দেয়ার প্রয়োজন নেই।

পর্যবেক্ষণে বিচারক আরও বলেন, আজ আন্তর্জাতিক নারী দিবস। এই দিবসেই সবার সংকল্প করা উচিত নারীরাও সমাজের উন্নয়নে অর্ধেক ভূমিকা রাখছেন। তাই তাদের সুরক্ষা নিশ্চিত করা সরকার, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীসহ সবার দায়িত্ব। যেভাবেই হোক নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। নারীদের প্রতি তাদের প্রাপ্য সম্মান দেখাতে হবে।

বদরুলের ভিডিও