আদালত বক্তৃতা দেওয়ার জায়গা নয়: ধমক দিয়ে বদরুলকে বিচারক

সিলেট প্রতিনিধি – সিলেটের কলেজছাত্রী খাদিজা বেগম হত্যাচেষ্টা মামলায় একমাত্র আসামি বদরুল আলমকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। আজ বুধবার সিলেটের মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক আকবর হোসেন মৃধা এই রায় ঘোষণা করেন।

রায় ঘোষণার সময় আদালতে হাজির করা ও আদালতের কাঠগড়ায় থাকাকালে চুপ ছিলেন বদরুল আলম। রায় ঘোষণার পর আদালত থেকে বের হওয়ার সময়ও চুপ ছিলেন। কিন্তু পুরো সময় তাকে কিছুটা বিচলিত দেখা যাচ্ছিল।

তবে আদালত ভবনের সিঁড়ি দিয়ে নামার সময় বদরুল হঠাৎ অনেকটা চিৎকার করে বলে ওঠেন, ‘জন্ম বাংলায়, মরব বাংলায়, এখানেই শেষ নয়। জয় বাংলা…’। এ অবস্থায় পুলিশ দ্রুত তাকে প্রিজন ভ্যানে তুলে নিয়ে যায়। সিলেটের মুখ্য মহানগর বিচারিক হাকিম আদালতে মামলার অভিযোগ গঠনের দিন ও সর্বশেষ সাক্ষ্য গ্রহণের দিন বদরুল জয় বাংলা বলেছিলেন।

bodrul-adalot

আদালতের অতিরিক্ত সরকারি কৌঁসুলি মাহফুজুর রহমান জানান, ২৬ ফেব্রুয়ারি মুখ্য মহানগর বিচারিক হাকিম আদালতে খাদিজার সাক্ষ্য শেষে আসামির কাঠগড়ায় থাকা বদরুল করজোড়ে ‘কিছু বলতে চাই’ বলে আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন। বদরুল বলতে থাকেন, ‘আমি কিছু বলতে চাই। আমাকে একটা সুযোগ দিন। আমি সত্য কথা বলব। আমি একজন শিক্ষক ছিলাম, আমি বঙ্গবন্ধুর সৈনিক।’

এ সময় বিচারক ধমক দিয়ে ‘আদালত বক্তৃতা দেওয়ার জায়গা নয়’ বলে বদরুলকে সতর্ক করে দেন। এ কথা শুনে বদরুলকে কিছুক্ষণ কাঁদতে দেখা গেছে। পরে যুক্তিতর্কের তারিখ নির্ধারিত হলে বদরুল ফের উচ্চ স্বরে বলে ওঠেন, ‘তুমি সুখী হও, খাদিজা। বিচারক আল্লাহ আছেন। আমার ফাঁসি হোক।’

কাঠগড়ায় নিশ্চুপ রায় শোনার পরেই ক্ষোভে ফুঁসে উঠে বদরুলের শ্লোগান ! (ভিডিও)