উভয়সংকট : অভিনেতা ধানুশের আসল মা-বাবা কে?

বিনোদন ডেস্ক – বলিউড ও তামিল সিনেমার জনপ্রিয় তারকা ধানুশ। নিজের অভিনয় গুণেই তাক লাগিয়েছেন বিশ্লষক থেকে শুরু করে সিনেমাপ্রেমীদের। এছাড়া ব্যক্তিগত জীবনে তিনি দক্ষিণ ভারতের মহাতারকা রজনী কান্তের মেয়ের জামাই। সব মিলিয়ে ধানুশকে নতুন করে পরিচয় করানোর কিছু নেই। কিন্তু সম্প্রতি প্রশ্ন উঠেছে ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া এ অভিনেতার আসল পরিচয় নিয়ে।

কারণ মাস দুয়েক আগে এ অভিনেতাকে নিজের ছেলে বলে দাবি করেন এক বৃদ্ধ যুগল। তারা বিষয়টিকে নিয়ে গেছেন আদালত পর্যন্ত। সেই মামলার শুনানির দিন আজ।

ভারতের তামিলনাড়ুর এক বৃদ্ধ দম্পতি দাবি করে বসেন ধানুশ তাদের ঔরশজাত সন্তান। সিনেমায় অভিনয়ের স্বপ্নপূরণ করতে বাড়ি থেকে পালিয়ে যান তিনি। তখন তার নাম ছিল কালাইসেলভান।

ধানুশ প্রাথমিকভাবে এই দাবি অস্বীকার করেন। এরপর কাথিরেসান ও মীনাক্ষি দম্পতি বিষয়টি আদালতে তোলেন। তারা ধানুশকে তাদের ছেলে হিসেবে দাবি করেন এবং বৃদ্ধ মা-বাবার ভরণপোষণ বাবদ মাসিক ৬৫ হাজার রুপি দাবি করে মামলা করেন। ওই দম্পতি আদালতে প্রমাণ হিসেবে তাদের ছেলে কালাইসেলভানের জন্ম নিবন্ধনপত্র ও ছবিও জমা দেন। কিন্তু ধানুশের আইনজীবী আদালতে দক্ষিণী তারকার বাবা কস্তুরী রাজা ও মা বিজয়ালক্ষ্মীর সংগ্রহে থাকা বেশ কিছু কাগজপত্র জমা দেন। এর মধ্যে ছিল ধানুশের জন্ম নিবন্ধনপত্র, স্কুলের বদলিপত্র ও স্কুলের প্রত্যয়নপত্র।

dhanush

গত ২৮ ফেব্রুয়ারি ভারতের মাদ্রাজের উচ্চ আদালতে এ মামলার জের ধরে হাজির হন। সে সময় প্রতিপক্ষের আইনজীবী ধানুশকে ডিএনএ পরীক্ষা করানোর দাবি জানালে তা প্রত্যাখ্যান করেন ‘কোলাভেরি ডি’ গায়ক। তার পক্ষে ধানুশের আইনজীবী বিষয়টিকে ভিত্তিহীন বলে এড়িয়ে যান। তবে আদালত ধানুশকে জন্মদাগ পরীক্ষা করাতে আদেশ করেন। ধানুশকে সন্তান বলে দাবি করা দম্পতির দেওয়া বর্ণনার সঙ্গে ধানুশের শরীরের দাগ মিলিয়ে দেখার জন্য এ পরীক্ষা করানো হয়।

সেই পরীক্ষার পরই আজ পড়েছে নতুন শুনানির তারিখ। গত ১৪ ফেব্রুয়ারির শুনানিতে মাদ্রাজ আদালত বলেছিলেন, এ মামলায় যে পক্ষের অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণিত হবে, তার জন্য অপেক্ষা করছে কঠিন শাস্তি।