দুর্গাপুর উপজেলায় দুই কিশোরকে নির্যাতনের ঘটনায় চেয়ারম্যানসহ আটক-৮

ওবায়দুল ইসরাম রবি, রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহীর দুর্গাপুরে দুই কিশোরকে গাছে বেঁধে নির্মম ভাবে নির্যাতনের ঘটনায় স্থানীয় চেয়ারম্যান, দুই ইউপি সদস্যসহ আটজন আটক। গ্রামের ছাগল চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই ঘটনার সুত্রপাত।

atokk

গত মঙ্গলবার দিবাগত রাতে আন্দুয়া গ্রামের ক্যাচিনি ফকিরের ছেলে রেজাউলের বাড়ি থেকে ছাগল চুরি হয়ে যায়। উপজেলার হাড়িয়াপাড়া গ্রামের জিয়াউর রহমানের ছেলে জার্জিস হোসেন ও পলাশবাড়ি গ্রামের সেকু আলীর ছেলে রতন নামের দুই কিশোর ওই ছাগলটি নিয়ে মতিহারের হরিয়ান বাজার দিয়ে যাওয়ার সময় তাদের বাজারের নাইট গার্ডরা আটক করে।

কিন্ত গতকাল বুধবার বেলা ১১টার দিকে ছাগল মালিক রেজাউলের বাড়ির পাশেই গ্রাম্য সালিশ বসানো হয়। এবং তাদের পরিবারের সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে ১৬ হাজার টাকা জরিমানা পরিশোধ করে। তদুপরি সালিশী বৈঠকে ওই দুই কিশোরকে গাছে বেঁধে নির্মম ভাবে আঘাত করা হয়। এ সময় কথিত ওই গ্রাম্য সালিশী বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান মোজাহার আলী মন্ডল, আন্দুয়া গ্রামের ইউপি সদস্য আব্দুল মোতালেব ও হাড়িয়াপাড়া গ্রামের ইউপি সদস্য মির্জা আব্দুল লতিব।

পরবর্তিতে ওই দুই কিশোরকে তাদের পরিবারের লোকজনের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ ঘটনায় ওই দুই কিশোরকে পেটানোর ভিডিও ফুটেজ ফেসবুক, টুইটার যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে ওই এলাকায় দিনভর চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রুহুল আলম ওই ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। মামলা দায়েরের পর দুই জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

দুর্গাপুর থানা পুলিশ সূত্র মতে, ছাগল চুরির অভিযোগে গাছের সঙ্গে দুই কিশোরকে বেধে মারপিটের ঘটনা বুধবার রাতেই মামলা দায়ের করা হয়। নির্যাতনের শিকার উপজেলার হাড়িয়াপাড়া গ্রামের কিশোর জার্জিস হোসেনের বাবা জিয়াউর রহমান বাদী হয়ে এ মামলা করেন। মামলায় ঝালুকা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোজাহার আলী, আন্দুয়া গ্রামের ইউপি সদস্য আব্দুল মোতালেব ও হাড়িয়াপাড়া গ্রামের ইউপি সদস্য আব্দুল লতিব মীর্জাসহ ৮ জনকে আসামি করা হয়। পরে আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশ অভিযান চালিয়ে দুই ইউপি সদস্যকে আটক করে। মোজাহার আলী, দুই ইউপি সদস্যসহ আটজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ ওই মামলায় দুই ইউপি সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে।

তারা হলেন, আওয়ামী লীগ নেতা ও ঝালুকা ইউনিয়নের আন্দুয়া গ্রামের ইউপি সদস্য আব্দুল মোতালেব ও হাড়িয়াপাড়া গ্রামের ইউপি সদস্য আব্দুল লতিব মীর্জা। তবে পলাতক রয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান মোজাহার আলী।