সারাদেশে প্রথম কালবৈশাখী ঝড়, মৌসুমী ফল-ফসলের ক্ষতির আশঙ্কা

রাজশাহী প্রতিমিধি – রাজধানীসহ সারাদেশে মৌসুমের প্রথম কালবৈশাখি ও ভারি বৃষ্টিপাত হচ্ছে। শুক্রবার সন্ধ্যা পৌনে ৬ টা থেকে এ পর্যন্ত ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে মাঝাড়ি বৃষ্টিপাত চলছে।

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, লঘুচাপের বর্ধিতাংশ উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। এর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালা তৈরি অব্যাহত রয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসার, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় এবং সমুদ্র বন্দুরসমূহের ওপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ বন্দরসমূহকে ৩ নম্বর পুনঃ ৩ (তিন) নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারসমূহকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

এদিকে রাজশাহী আবহাওয়া অফিস জানায়, মাঝাড়ি বৃষ্টিপাতের সঙ্গে কালবৈশাখির ঝড় হয়েছে। প্রথম আধাঘণ্টায় ২২ মিলি মিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে রাজশাহী অঞ্চলে। বৃষ্টিপাত ও ঝড়োহাওয়ায় কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায় নি। তবে এ বৃষ্টিপাতে উঠতি আলু, মশুর, ভুট্টা ও রবিশষ্যের ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা করছেন কৃষকরা।

jhor

এদিকে বৃষ্টিপাতের কারণে রাজশাহী নগরীর নিম্ননাঞ্চল হিসেবে পরিচিত উপশহর, কোর্ট এলাকার লক্ষীপুর, গুড়িপাড়া, হড়গ্রাম ও কাজলা এলাকায় সড়কে পানি উঠে যায়। দীর্ঘদিন ধরে ড্রেন পরিস্কার না করায় ড্রেন উপচে পানি জমে যায় বিভিন্ন সড়কে। ছুটির দিনের বিকেলে হঠাৎ বৃষ্টিপাতে ঘর থেকে বের হওয়া মানুষজন পড়েন বিপাকে।

রাজশাহী আবহাওয়া অধিদপ্তরের পর্যবেক্ষক রাজিব খান জানান, রাজশাহীতে সকাল থেকেই মেঘলা আবহাওয়া বিরাজ করছিলো। পৌনে ৬টার দিকে মাঝাড়ি ধরনের বৃষ্টিপাত ও কালবৈশাখির ঝড় বয়ে যায়। এটি এ মৌসুমের প্রথম বৃষ্টিপাত ও কালবৈশাখী।

জেলার পবা উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মঞ্জুরে মওলা জানান, এ বৃষ্টিপাতে মাঠের উঠতি আলুসহ রবিশষ্যের কিছুটা ক্ষয়ক্ষতি হতে পারে। এছাড়া আমের মুকুল ঝরে ক্ষতির কারণ হতে পারে।