ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে দীর্ঘ ২০ কিলোমিটার যানজট

আলমগীর হোসেন, কালিয়াকৈর প্রতিনিধি: ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে আজও ২০ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এ যানজট যেন নিত্যদিনের ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে।

janjot

এ যানজট গতকাল শুক্রবার ভোর রাত থেকে শুরু হয়ে আজ দুপুর পর্যন্ত অব্যাহত আছে। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে বিভিন্ন যানবাহনের যাত্রীসহ শিল্প প্রতিষ্ঠানের যানবাহন ও স্থানীয় সাধারন মানুষ। এ যানজটের কারণে এক ঘন্টার পথ পাড়ি দিতে সময় লাগছে ৪/৫ ঘন্টা।

হাইওয়ে পুলিশ জানায়, মহাসড়কের এলোমেলো ভাবে গাড়ি চলাচল, বিকল গাড়ি পার্কিং এবং বৃষ্টির কারনে এ যানজট সৃষ্টি হয়েছে। ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের গাজীপুরের কোনাবাড়ি থেকে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই পর্যন্ত মহাসড়কের উভয় পাশে দীর্ঘ ২০ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। তবে মহাসড়কে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

পথচারী ও সাধারন মানুষ বলছেন, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের চন্দ্রা থেকে কোনাবাড়ি পর্যন্ত যানজট নতুন কোন বিষয় নয়। প্রায় নিত্যদিনের ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে এ সড়কে যানজট। এতে সাধারন মানুষের ভোগান্তির যেন শেষ নেই। তারা মনে করছেন চন্দ্রা থেকে কোনাবাড়ি পর্যন্ত যত গুলো ছোট বড় স্ট্যান্ড রয়েছে সেগুলোতে ট্রাফিক দ্বারা সঠিক ভাবে লোকাল গাড়ীর এলোমেলো পাকিং নিয়ন্ত্রন করতে হবে। আর যতদিন না এটা করা হবে ততদিন যানজট থাকবেই।

ঢাকাগামী হারিফ এন্টারপ্রাইজ এর বাস চালক ইদ্রিস আলী জানান, ভোর ৫টার দিকে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর অতিক্রম করার পর থেকেই মহাসড়কে যানজটে পড়েন। ওই যায়গা থেকে সফিপুর আনসার একাডেমি আসতে তার সময় লেগেছে প্রায় সাড়ে ৫ ঘন্টা।

নওগাগামী দূর্গেষ পরিবহনের চালক মোঃ মঞ্জু মিয়া জানান, রাত ৩টার দিকে ঢাকার গাউছিয়া থেকেই তিনি যানজটে পড়েন। গাউছিয়া থেকে আনসার একাডেমি আসতে প্রায় ৮ ঘন্টা সময় লেগেছে বলে জানান।

সালনা (কানবাড়ি) হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ হোসেন সরকার সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের এলোমেলো ভাবে গাড়ি চলাচল, বিকল গাড়ি পার্কিং এবং বৃষ্টির কারনে এ যানজট সৃষ্টি হয়েছে। যানজট স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তবে অল্প সময়ের মধ্যে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।