‘বৃত্তির টাকা সঠিকভাবে কাজে লাগিয়ে শিক্ষার্থীদের জীবনকে এগিয়ে নিতে হবে’

সময়ের কণ্ঠস্বর- বৃত্তির টাকা সঠিকভাবে কাজে লাগিয়ে শিক্ষার্থীদের জীবনকে এগিয়ে নিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। শনিবার রাজধানীর মিরপুরে শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে ডাচ-বাংলা ব্যাংকের বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, সরকার শিক্ষার্থীদের জন্য বৃত্তির হার বাড়ালেও ডাচ-বাংলা ব্যাংকের মতো এত বেশি পরিমাণ টাকা দিতে পারেনি। তবে টাকার পরিমাণ বাড়ানো উচিত। এজন্য জনগণকে বেশি করে কর দিতে হবে। তাহলেই রাজস্ব বাড়বে। সরকারও জনগণের জন্য বেশি ব্যয় করতে পারবে।

14351আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ডাচ-বাংলা ব্যাংকের বৃত্তি প্রকল্পটি দেশের দরিদ্র ও মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের কল্যাণে আর্থিক খাতের অনন্য দৃষ্টান্ত। দেশের অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো সমাজের কল্যানে এ ধরনের কর্মসূচি গ্রহণ করলে জনগণ আরো বেশি উপকৃত হবে।

মন্ত্রী বলেন, সরকার প্রাথমিক স্কুলে ৯৯ শতাংশ শিশুদের অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিত করেছে। শুধু প্রতিবন্ধীদের শিক্ষার ক্ষেত্রে শতভাগ সুযোগ সুবিধা সৃষ্টি করা সম্ভব হয়নি। কিন্তু মাধ্যমিক পর্যায়ে তেমন অগ্রগতি সাধন হয়নি। তবে আগের তুলনায় শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ বেড়েছে।

অনুষ্ঠানে ২০১৬ সালের এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে স্নাতক পর্যায়ে অধ্যয়নরত ২ হাজার ২৮ জন শিক্ষার্থীকে বৃত্তি প্রদান করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রতিবন্ধী ও নারী শিক্ষার্থী রয়েছেন উল্লেখযোগ্য সংখ্যক।

তাছাড়া শতকরা ৯০ ভাগ গ্রামাঞ্চলের শিক্ষার্থীর ৫০ ভাগই ছাত্রীদের বৃত্তি দেয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত ৪৩ হাজার ৬২৮ জনকে বৃত্তি দিয়েছে ডাচ-বাংলা ব্যাংক। এর মধ্যে শিক্ষার বিভিন্ন স্তরে এখনো বৃত্তি কার্যক্রম চলমান রয়েছে ১৮ হাজার ১৬১ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে।