খুলনায় জেলা আইন-শৃঙ্খলা ক‌মি‌টির সভা অনুষ্ঠিত

জিএস‌কে শান্ত, স্টাফ ক‌রেসপ‌ন্ডেন্ট: খুলনায় সন্ত্রাস-নাশকতা এবং জেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনু‌ষ্ঠিত হ‌য়ে‌ছে। আজ রবিবার (১২ মার্চ) সকালে জেলা প্রশাসনের অা‌য়োজ‌নে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

komiti

জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল আহসানের সভাপ‌তিত্বে অনু‌ষ্ঠিত সভায় খুলনা-৬ আসনের সংসদ সদস্য শেখ মোঃ নূরুল হক, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশিদ, কেবিনেট ডিভিশনের যুগ্ন সচিব আবু সালেহ মোস্তফা কামাল, উপজেলা চেয়ারম্যান, সিভিল সার্জন, উপ-পুলিশ কমিশনার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, কেসিসি’র প্রতিনিধি, র‌্যাব প্রতিনিধি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ কমিটির অন্যান্য সদস্যগণ উপ‌স্থিত ছি‌লেন।

সভায় মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ একটি আরেকটির সাথে ওতোপ্রোতভাবে জড়িত বিধায় এগুলো সার্বিকভাবে নিয়ন্ত্রণের জন্য কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণে মতামত ব্যক্ত করা হয়। জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জানান, প্রতিটি স্কুলে মাদক বিরোধী কমিটি করা হয়েছে। সভায় স্কুল কলেজের সাথে মাদ্রাসাতেও মাদক বিরোধী প্রচারণা ও আলোচনা সভা করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয় এবং প্রতিটি এলাকাকে মাদকমুক্ত করতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মাধ্যমে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয়ে কমিটি করা যেতে পারে মর্মে অভিমত ব্যক্ত করা হয়।

সকাল আটটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত শহরে ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান প্রবেশ করতে পারবে না এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে ট্রাফিক পুলিশের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি কমিটি করে ট্রাক মালিক সমিতি এবং ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সাথে সভা অনুষ্ঠানের বিষয়টি আলোচনায় আসে। শহরে অসহনীয় যানজট নিরসনে রিক্সা ও ইজিবাইকের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণের বিষয়টি আবারও আলোচনায় প্রধান্য পায়। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করে খুলনা-৬ আসনের সংসদ সদস্য শেখ মোঃ নূরুল হক বলেন, রিক্সা ইজিবাইকের রেজিস্ট্রেশন যথাযথ হলে অবৈধ যান চলাচল বন্ধ হবে এবং যানজট কমে আসবে।

জেলা সিভিল সার্জন জানান, রোগী সেবার মান সমুন্নত রাখতে ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে নিয়মিতভাবে পরিদর্শন করা হচ্ছে। সেবার মান যথাযথ রাখতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে এবং যথাযথ প্রতীয়মান না হওয়ায় ৬টি ক্লিনিক বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

সভায় কেবিনেট ডিভিশনের যুগ্ন সচিব আবু সালেহ মোস্তফা কামাল বলেন, আন্ত: প্রতিযোগিতামূলক কাজের মাধ্যমে প্রতিটি উপজেলা নিজেদেরকে উন্নয়নের আদর্শ হিসেবে উপস্থাপন করতে পারে। উন্নয়নের প্রধান শর্ত আইন শৃঙ্খলা পরি‌স্থি‌তি স্বাভাবিক থাকা। আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে এবং স্থানীয় যেকোন সমস্যা নিরসনে উপজেলা চেয়ারম্যান এবং প্রশাসনের সমন্বয়ের ওপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন।

সভায় আইন শৃঙ্খলা প্রতিবেদনে জানানো হয়, খুলনা মহানগরীর আটটি থানায় গত ফেব্রুয়ারি-১৭ মাসে ডাকাতি ২টি, চুরি ১০টি, খুন ২টি, অস্ত্র আইন ১টি, দ্রুত বিচার ২টি, ধর্ষণ ৩টি, নারী ও শিশু নির্যাতন ৯টি, এসিড নিক্ষেপ ১টি, মাদকদ্রব্য ৮৬টি এবং অন্যান্য ৪৫টি সহ মোট ১৬১টি মামলা দায়ের হয়েছে। গত জানুয়ারি-১৭ মাসে এ সংখ্যা ছিল ১৫৬টি।

জেলার নয়টি থানায় গত ফেব্রুয়ারি-১৭ মাসে রাহাজানি ১টি, চুরি ৩টি, খুন ৭টি, অস্ত্রআইনে ২টি, ধর্ষণ ৭টি, অপহরন ৩টি, নারী ও শিশু নির্যাতন ১৭টি, নারী ও শিশু পাচার ২টি ও মাদকদ্রব্য ৫২টি এবং অন্যান্য আইনে ৮৪টিসহ মোট ১৭৮টি মামলা দায়ের হয়েছে। গত জানুয়ারি-১৭ মাসে এ সংখ্যা ছিল ১৩৯টি।