মুসলিম বিদ্বেষী বৌদ্ধগুরুর বিরুদ্ধে অবশেষে ‘নজিরবিহীন’ পদক্ষেপ নিলো দেশটির শীর্ষ বৌদ্ধ সংগঠন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক – মিয়ানমারে মুসলিম বিদ্বেষ ছড়ানো কুখ্যাত বৌদ্ধগুরু উইরাথুর উসকানিমূলক ‘নসিহত’ প্রচারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে দেশটির শীর্ষ বৌদ্ধ সংগঠন।

‘বৌদ্ধ সন্ত্রাসীদের মুখ’ নামে খ্যাত উইরাথুর বক্তব্যে দেশটিতে মুসলিম বিদ্বেষ চরমে পৌঁছানোর পর নজিরবিহীন এ পদক্ষেপ নেয়া হল বলে জানিয়েছে আলজাজিরা।

শুক্রবার দেশটির শীর্ষস্থানীয় বৌদ্ধ নেতাদের এক সমাবেশে, যা রাষ্ট্রীয় সংঘ মহানায়ক নামে পরিচিত, উইরাথুর সব ধরনের ধর্মীয় ভাষণের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।

wirathu

শনিবার এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘তার একের পর এক বক্তব্যে ধর্মের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়িয়েছে এবং সাম্প্রদায়িক সংঘাত বেড়েছে। এতে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা বাধাগ্রস্ত হয়েছে। ফলে ১০ মার্চ ২০১৭ থেকে ৯ মার্চ ২০১৮ পর্যন্ত তার সব ধরনের ধর্মীয় বক্তব্য প্রচারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হল। ’

আইন অনুযায়ী তার বিচার হবে বলেও মন্তব্য করেছে সংগঠনটি।

‘বৌদ্ধ সন্ত্রাসীদের মুখ’ উইরাথু মিয়ানমারে যাতে মুসলিম জনসংখ্যা না বাড়তে পারে তিনি সেই পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানিয়েছিলেন। পাশাপাশি বৌদ্ধপ্রধান দেশটি ইসলামপন্থীরা দখল করতে পারেন বলে অমূলক হুশিয়ারিও দিয়েছিলেন।

যদিও দেশটিতে মুসলিম জনসংখ্যা মোট জনসংখ্যার মাত্র পাঁচ ভাগ। মিয়ানমারে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে যে বর্বরতা চলছে তাতে এই বৌদ্ধগুরু নামধারী সংগঠনের ভূমিকা রয়েছে বলে মনে করা হয়।