মুখে বসন্তের অনাকাঙ্ক্ষিত দাগ নিয়ে মন খারাপ, জানুন মুক্তির উপায়

স্বাস্থ্য ডেস্ক, সময়ের কণ্ঠস্বর – জীবনে একবার হলেও নাকি বসন্ত রোগে সবাইকে ভুগতেই হয়! অনেকের অবশ্য একাধিক বারও হয়ে থাকে। সাধারণত শীতকালে এই ধরণের রোগ বেশি হয়ে থাকে। বসন্ত রোগের জীবাণু শরীরে ঢুকে গেলে সারা গায়ে চুলকানি আর ফোস্কায় ভরে যায়। রোগীকে এক দুই সপ্তাহ যন্ত্রনায় ভুগিয়ে শেষ মেস রোগটা ঠিকই ভাল হয়ে যায় কিন্তু রেখে যায় এর চিহ্ন।

এই অনাকাঙ্ক্ষিত দাগ নিরাময়ের জন্য আজকাল বেড়িয়েছে নানা ধরণের ক্রিম, ওষুধ। কিছুটা সময় লাগে কিন্তু নিয়মিত ব্যবহারে এক সময় বসন্তের দাগ চলে যায়। অনেকে আছেন যারা ঘরোয়া চর্চায় অভ্যস্ত। তাদের জন্যই আজকের লেখা। চলুন জেনে নেই ঘরোয়া পদ্ধতিতে বসন্তের দাগ নিরাময়ের উপায়-

বাসায় পাকা পেঁপে থেকে থাকলে নিয়ে নিন এক টুকরো পেঁপে। এবার এর সাথে যোগ করুন পরিমাণ মত লাল চিনি ও দুধ। ভালোভাবে মিক্সড করে নিয়ে দাগের উপর লাগিয়ে নিন। চাইলে পুরা মুখেও লাগাতে পারেন ফেসপ্যাকের মতো। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন। শুকিয়ে এলে পরিষ্কার ঠাণ্ডা পানিতে মুখ ধুয়ে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন।

স্বাস্থ্য সচেতন যারা তাদের বাসায় ওটস আর মধু থাকেই। বসন্তের দাগ দূর করতে নিয়ে নিন পরিমাণ মত ওটস ও মধু। এবার ওটস বেটে পেস্ট তৈরি করে নিয়ে এতে মেশান মধু। এবার হালকা হাতে ঘষে ঘষে দাগের উপর লাগিয়ে নিন। মিনিট বিশেক চুপচাপ শুয়ে থাকুন। শুকিয়ে এলে ধুয়ে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন।

পরিমাণ মতো বেকিং সোডার সাথে সামান্য পানি মিশিয়ে স্ক্রাব তৈরি করে নিন। এবার মিনিট পাঁচেক মুখে ম্যাসাজ করুন। বসন্তের দাগ সারাতে প্রতিদিন এই স্ক্রাব ব্যবহার করুন। আর নর্মাল ত্বকের জন্য সপ্তাহে দুই বার।

ত্বকের দাগ সরাতে ও স্বাস্থ্যকর ত্বকের জন্য অ্যালোভেরার জুড়ি নেই। দিনে কয়েকবার বসন্তের দাগের উপর অ্যালোভেরা জেলের ম্যাসাজ করুন। আর কিছু দিন এই জেলটি ময়েশ্চারাইজার হিসেবে ব্যবহার করুন এতে বসন্তের দাগ চলে যাবে।

বসন্তের দাগ দূরীকরণে নারকেল তেল বেশ কার্যকরি। দাগ সারাতে দিনে কয়েকবার আক্রান্ত স্থানে নারকেল তেল লাগিয়ে হালক হাতে ঘষুন। আর রাতের বেলা দাগের উপর নারকেল তেল লাগিয়ে ঘুমিয়ে যান। সকালে পরিষ্কার পানিতে মুখ ধুয়ে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন।

কিছুদিন নিয়মিত ডাবের পানিতে মুখ ধোঁয়া। এই পানিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে মিনারেল যা স্বাস্থ্য ও ত্বকের জন্য অত্যন্ত জরুরি।

আর সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি হলো-এক টুকরা তুলোতে সামান্য লেবুর রস নিয়ে আক্রান্ত স্থানে লাগিয়ে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে ধুয়ে নিন।

উপরে দেয়া প্রত্যেকটি পদ্ধতিই বেশ কার্যকরি। নিয়মিত ব্যবহারে দাগ গুলো দ্রুত চলে যায় কিন্তু গর্তগুলো যেতে একটু বেশি টাইম লাগে তাই ধৈর্য্যসহকারে পছন্দ অনুসারে পদ্ধতিটি অনুসরণ করুন আর ফিরে পান সুন্দর ত্বক।