মসজিদে নামাযরত অবস্থায় পীরের পিঠে ছুরিকাঘাত, যুবককে গণপিটুনি

ফটিকছড়ি, চট্টগ্রাম প্রতিনিধি –

 ফটিকছড়ি উপজেলায় নামাজরত অবস্থায় এক পীরকে পেছন থেকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। এতে গুরুতর আহত পীরকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

উপজেলার পাইন্দং ইউনিয়নের আশরাফাবাদ দরবার শরীফে আজ (সোমবার) সন্ধ্যায় মাগরিবের নামাজ আদায় করার সময় এ ঘটনা ঘটে। গুরতর আহত পীরের নাম হাফেজ শাহালম নঈমী (৬০)।

সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গেলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, পাইন্দং করবল­াহ টিলায় অবস্থিত আশরাফাবাদ দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন হাফেজ শাহালম নঈমী (৬০) মাজারের মসজিদে মাগরিবের নামাজের ইমামতি করছিলেন। নামাজরত অবস্থায় পেছন থেকে এক যুবক তার পিটে ছুরিকাঘাত করে। এ সময় মসজিদে থাকা লোকজন হামলাকারী যুবক ছালাউদ্দিন (২৭)কে আটক করে। খবরটি চারদিকে ছড়িয়ে হলে পীরের ভক্তরা সেখানে এসে ভিড় জামান। হামলাকারীকে গণপিটুনি দেয়।

আহত পীরকে প্রথমে নাজিরহাটস্থ উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পরে সেখান থেকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। খবর পেয়ে ফটিকছড়ি থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে যেতে চাইলে পীরের ভক্তদের বাধার সম্মুখিন হয়।

পরে অতিরিক্ত পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আটক যুবককে জনতার হাত থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। ওই যুবক একই ইউনিয়নের পাইন্দং গ্রামের মিয়াজি বাড়ির নুর মুহাম্মদের ছেলে।

fotikchori-pir

প্রত্যক্ষদর্শী একাধিক ব্যক্তি জানান, হামলাকারীরা সংখ্যায় চারজন ছিল। বাকিরা পালিয়ে যায়। এ হত্যা চেষ্টার কারণ হিসেবে স্থানীয়দের ধারণা মাজারের জায়গা-জমির বিরোধের জের ধরে ঘটতে পারে।

foticchori pir hamala

ফটিকছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু ইউছুফ মিয়া বলেন, ‘এলাকায় থমত্থমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। অতিরিক্তি পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে প্রবেশ করে আটক ব্যক্তিকে থানায় নিয়ে আসি। প্রাথমিকভাবে পাওয়া তথ্য মতে জায়গার বিরোধের জের ধরে এ ঘটনার সূত্রপাত হতে পারে।

মামলা দায়েরের পর তদন্ত সাপেক্ষ প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।’