২০ জেলা থেকে ফেসবুকের মাধ্যমে সমবেত হওয়া ২৮ সমকামী যুবকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের

স্টাফ রিপোর্টার, সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা-

ঢাকার কেরানীগঞ্জের আঁটিবাজার থেকে ২৭ সমকামী যুবকসহ মোট ২৮ জনকে আটক করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব-১০)। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত তিনটার দিকে তাদের আটক করা হয় বলে নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-১০-। র‌্যাব জানিয়েছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গতরাতে কেরানীগঞ্জের ছায়ানীড় কমিউনিটি সেন্টারে অভিযান চালিয়ে ২০ জেলার ২৮ জনকে আটক করা হয়।

এ সময় ‘ছায়ানীড়’ নামে ওই কমিউনিটি সেন্টারের ম্যানেজার জসিম নামের একজনকেও আটক করা হয়। বৃহস্পতিবার দিনগত রাত ৩ টা থেকে অভিযান শুরু হয়ে রাত  ৪টার দিকে তাদের আটক করা হয়। এ সময় আটকদের কাছ থেকে নেশাজাতীয় দ্রব্য, যৌন উত্তেজক সামগ্রী ও কনডম ও লুব্রিকেন্ট উদ্ধার করা হয়।

সমকামীদের আটক্কালীন অভিযানের সময় তোলা ছবি
সমকামীদের আটককালীন অভিযানের সময় তোলা ছবি

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘আটক যুবকদের র‍্যাব-১০ এর কেরানীগঞ্জ ক্যাম্পে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তারা নিজেদের ‘সমকামী’ বলে দাবি করেন।’

‘এলাকাবাসী অনেক দিন ধরেই তাদের বিরুদ্ধে সমকামীতার অভিযোগ করছিলেন। প্রায় দুই মাস পরপর তারা কমিউনিটি সেন্টারে সমবেত হন।’

সমকামিতার অভিযোগে আটক ২৭ যুবককের বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা হয়েছে। একই মামলায় কমিউনিটি সেন্টারের ম্যানেজার জসিমকেও আসামি করা হয়েছে।

শুক্রবার বিকালে মামলা দায়েরের পর তাদের কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় সোপর্দ করা হয়।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যোবায়ের সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান,’ আটককৃতরা সমকামিতার কথা স্বীকার করলেও গ্রেফতার হওয়ার আগে তারা সমকামিতায় লিপ্ত হয়নি। সেজন্য তাদের বিরুদ্ধে সমকামিতার অভিযোগ আনা হয়নি। যেহেতু তাদের কাছে মাদকদ্রব্য পাওয়া গেছে, এজন্য মাদক নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, আটক যুবকরা জানিয়েছে তারা সবাই বন্ধু এবং এক বন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে তারা সেখানে সমবেত হয়েছিল। তাদের বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি  আরও জানান, ‘‘বিকেলে র‌্যাব আমাদের কাছে ২৮ জনকে হস্তান্তর করেছে৷ তাদের বিরুদ্ধে গাঁজা ও ইয়াবা দখলে রাখা এবং সেবনের অভিযোগে মামলা হয়েছে৷ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের এই মামলায় কাল (শনিবার) আমরা তাদের আদালতে চালান করব৷’’

আসামীদের রিমান্ড চাওয়া হবে কী না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘এ ধরনের মামলায় রিমান্ড চাওয়ার কোনো সুযোগ নেই৷ আমরা রিমান্ড চাইব না৷’’

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় ঢাকার কাওরান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-১০-এর অধিনায়ক জাহাঙ্গীর হোসেন মাতব্বর বলেন, ‘‘২০টি জেলা থেকে সমকামীরা ওই কমিউনিটি সেন্টারে জড়ো হয়েছিল৷ তারা প্রতি দুই মাসে একবার সেখানে জড়ো হয়৷’’ তিনি আরও বলেন, ‘‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে তারা একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ করে৷ এ সময় তাদের কাছ থেকে ৪৫টি ইয়াবা ও ২৫০ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করা হয়৷’’

আটকের ঘটনায় র‍্যাব-১০’র অধিনায়ক মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন মাতুব্বর জানিয়েছেন, কেরানীগঞ্জের আটিবাজার এলাকায় একটি নির্দিষ্ট সময়ে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে কিছু তরুণ একটি কমিউনিটি সেন্টারে জড়ো হয়। গতরাতেও তারা সেখানে জড়ো হয়েছে, এমন খবর পেয়ে র‍্যাব সদস্যরা কমিউনিটি সেন্টারটি ঘেরাও করে।

“তাদের কাছে কিছু মাদক পাওয়া গেছে। জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছে যে তারা সমকামিতার সাথে জড়িত। এ সমকামিতার সাথে জড়িত কিছু জিনিসপত্র যেমন কনডম, লুব্রিকেটিং জেল আটক করা হয়েছে,” ।

keranigon-somokami-atok
র‍্যাব ১০ এর কার্যালয়ে আটকের পর সমকামী যুবকদের ছবি-

অধিনায়ক জাহাঙ্গীর মাতুব্বর জানিয়েছেন, বাংলাদেশের আইনে সমকামিতা একটি অপরাধ। যাদের আটক করা হয়েছে তাদের বয়স ২০ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে এবং এদের বেশিরভাগই ছাত্র।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছে, ফেসবুক এবং মোবাইল ফোনে যোগাযোগের মাধ্যমে তারা কেরানীগঞ্জের কমিউনিটি সেন্টারে জড়ো হতো। প্রতিবার জড়ো হলে কমিউনিটি সেন্টারের মালিককে ১০ হাজার টাকা ভাড়া দেয়া হয়।

র‍্যাব অধিনায়ক মাতুব্বর জানান, “তারা স্বীকার করে যে তারা মূলত ঐ কাজেই (সমকামিতায় লিপ্ত হওয়া) আসে। র‍্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা গতকাল ঐ কাজে লিপ্ত হতে পারেনি। তার আগেই তারা অ্যারেস্ট (গ্রেফতার) হয়েছে।”

র‍্যাব অধিনায়ক আরও জানান, তবে সমকামিতার কথা স্বীকার করলেও গতরাতে গ্রেফতার হওয়ার আগে তারা সমকামিতায় লিপ্ত হয়নি, সেজন্য তাদের বিরুদ্ধে সমকামিতার অভিযোগ আনা হচ্ছে না ।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে সমকামীদের আটকের ঘটনা এই প্রথম নয়৷ গত বছর ( ২০১৬) পহেলা বৈশাখ বাংলা নববর্ষের দিন ‘রংধনু’ র‌্যালী বের করার চেষ্টাকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা এলাকা থেকে ৪ জন সমকামীকে আটক করে পুলি। তারা তখন একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলকে এলজিবিটি আন্দোলনের পক্ষে তাদের মতামত দিচ্ছিলেন।

keranigon-somokami
সমকামীতার অভিযোগে আটকের পর র‍্যাব- ১০ এর কার্যালয়ে অভিযুক্ত যুবকদের ছবি

গত বছরের ২৫ এপ্রিল সন্ধ্যায় ঢাকার কলাবাগান এলাকায় বাড়িতে ঢুকে সমকামীদের অধিকার বিষয়ক ম্যাগাজিন ‘রূপবান’ সম্পাদক সম্পাদক জুলহাজ মান্নান ও তার বন্ধু মাহবুব তনয়কে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা৷ সেই হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িতদের পুলিশ এখনো গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

এদিকে, ২৭ জন সমকামীকে গ্রেপ্তারের পর এলজিবিটি মুভমেন্টের সঙ্গে জড়িত কারো প্রতিক্রিয়া জানা যায়নি। তবে নানা পর্যায়ে কথা বলে জানা গেছে, জুলহাজ-তনয় হত্যাকাণ্ডের পর বাংলাদেশে এলজিবিটি অধিকার সংক্রান্ত তৎপরতা থমকে গেছে৷। তাদের ওপর পুলিশের নজরদারী এবং চাপও বেড়ে গেছে৷ যারা সক্রিয় ছিলেন, তাদের একাংশ দেশের বাইরে চলে গেছেন৷ আর যারা আছেন, তারা এখন আর প্রকাশ্যে কোনো তৎপরতা চালাচ্ছেন না।