গুজব নয়, নকল ডিমের ছড়াছড়ির খবর! গৃহবধূর অভিযোগে অভিযান চালিয়ে উদ্ধার হলো নকল ডিম

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক-

চীনের তৈরি নকল ডিম নিয়ে হৈ চৈ আর নানা গুঞ্জন ছিলো আগে থেকেই । প্লাস্টিক সহ নানা উপাদান দিয়ে তৈরি এসব ডিম ভারতের বাজার থেকে বাংলাদেশের বাজারেও ঢুকে পড়েছে এমন সংবাদও প্রকাশিত হয়েছে এর আগে।

এ দফায় ভারতের পশ্চিমবঙ্গে এক গৃহবধূর অভিযোগের পর স্থানীয় একটি বাজারে অভিযান চালায় পুলিশ । সেখানে বেশ কিছু নকল ডিম উদ্ধারের পর  কলকাতার বেশ কয়েকটি বাজারে অভিযান চালিয়ে বিপুল সংখ্যক ‘নকল ডিম’ জব্দ  করেছে পুলিশ ।

উদ্ধার হওয়া এসব ডিম প্লাস্টিকের তৈরি এবং চীন থেকে আমদানি বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা। অভিযানে উদ্ধার করা ডিমগুলো  দিল্লির সেন্ট্রাল ফরেনসিক ল্যাবে নমুনা পাঠানো হয়েছে।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম সুত্রে জানা গেছে, কলকাতার তিলজলার বাসিন্দা অনিতা কুমার। বাজার থেকে ডিম আনার পর ভাঙতেই কুসুম দেখে সন্দেহ হয় তার। দেখতে পান কুসুমের ওপর হালকা আবরণ। এরপর ডিম কড়াইতে দিতেই প্লাস্টিক পোড়া গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে। এতে সন্দেহ আরো বেড়ে যাওয়ায় সবগুলো ডিম আগুনে পুড়িয়ে পরীক্ষা করেন। এবারও প্লাস্টিক পড়ানোর মতো গন্ধ পান তিনি।

এ বিষয়ে ওই গৃহবধূর অভিযোগের পর বৃহস্পতিবার পার্ক-সার্কাস বাজারের শামীম আনসারি নামের ডিম বিক্রেতাকে আটক করে পুলিশ। পরে তার দেওয়া তথ্যে ভিত্তিতে, আরো কয়েকটি জায়গায় অভিযান চালানো হয়।

নকল ডিমের ধকল থেকে মুক্তি পাবেন যেভাবে

‘২০০৪ সাল থেকেই তৈরি হচ্ছে কৃত্রিম ডিম।’ যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রকাশিত বিজ্ঞান সাময়িকী ‘দ্য ইন্টারনেট জার্নাল অফ টক্সোকোলজি’তে কৃত্রিম ডিম সম্পর্কে বিশ্লেষণধর্মী তথ্য প্রকাশ হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কৃত্রিম ডিমে কোনো খাদ্যগুন ও প্রোটিন নেই। বরং তা মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর।

শুধু ভারত নয় নকল ডিমের এমন ছড়াছড়িতে মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে বাংলাদেশও। সাম্প্রতিককালে   নিউ ইয়র্ক টাইমস, মায়ানমারের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন, ইন্ডিপেন্ডেন্ট মর্নিং ও দেশের কয়েকটি জাতীয় নিউজ পোর্টালসহ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক মিডিয়াতে এ বিষয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। এসব প্রতিবেদনে  বলা হয়, চীনের রাজধানী ইয়াঙ্গুনসহ দেশটির বিভিন্ন এলাকায় সীমান্তের চোরাপথে চীন থেকে কৃত্রিম ডিম পাচার হয়ে আসছে। যা দেখতে অবিকল হাঁস মুরগির ডিমের মতো।

আসলে প্রযুক্তি কিংবা বিজ্ঞান এর আদলে আমাদের জন জীবন আজ অনেক টাই সহজ, চাইলে হাত বাড়িয়ে পাই ইচ্ছের রঙ্গিন ঘুড়ি, সপ্নের বাস্তবতা হাতের মুঠোয় কিন্তু সব কিছুর ই এপিঠ ওপিঠ আছে বৈকি, আর সেই ভয়ংকর ওপিঠের আদলেই জন্ম নিয়েছে নকল বা কৃত্রিম ডিম, আমরা সবাই কম বেশি নকল বা কৃত্রিম ডিমের কথা শুনেছি, শুরুতে অনেকটা বিস্ময় থাকলে ও এখন মোটামুটি সবাই ই জানি।

প্রথম প্রথম অনেকেই বিষয়টিকে গুজব বলে উড়িয়ে দিলেও এখন আর সেটা গুজবের পর্যায়ে নেই। কেননা খোদ বাংলাদেশেই নকল ডিম কেনার ও খাওয়ার অভিজ্ঞতা অনেকের হয়েছে।

nokol dim
নকল ডিমের ছবি- ইন্টারনেট থেকে সংগৃহীত

মায়ানমারের রাজধানী ইয়াঙ্গুনসহ ওই দেশের বিভিন্ন এলাকায় সীমান্তের চোরাপথে চিন থেকে কৃত্রিম ডিম পাচার হচ্ছে। চোরাপথে সেই ডিম ভারত-সহ আশপাশের অন্যান্য দেশেও ছয়লাপ হয়েছে নকল ডিমে।

চিনে তৈরি হওয়া এসব কৃত্রিম বা নকল ডিম এক কথায় বিষাক্ত। কৃত্রিম ডিম তৈরিতে ব্যবহৃত রাসায়নিক উপাদান ক্যালসিয়াম কার্বনেট, স্টার্চ, রেসিন, জিলেটিন মানবদেহের জন্য খুবই ক্ষতিকর। দীর্ঘদিন এই ধরনের ডিম খেলে স্নায়ুতন্ত্র ও কিডনিতে সমস্যা হতে পারে। ক্যালসিয়াম কার্বাইড ফুসফুসের ক্যান্সারসহ জটিল রোগের কারণ।

আসুন এবার জেনে নেয়া যাক নকল ডিম চেনার কয়েকটি কার্যকরী টিপসঃ

১. কৃত্রিম ডিম আকারে আসল ডিমের তুলনায় সামান্য বড়।
২. এই ডিম সিদ্ধ করলে কুসুম বর্ণহীন হয়ে যায়।
৩. ভাঙার পর আসল ডিমের মতো কুসুম এক জায়গায় না থেকে চারপাশে ছড়িয়ে পড়ে।
৪. কৃত্রিম ডিম অনেক বেশি ভঙ্গুর। এর খোসা অল্প চাপেই ভেঙে যায়।
৫. এর খোলস খুব মসৃণ হয়। খোসায় প্রায়ই বিন্দু বিন্দু ফুটকি দাগ দেখা যায়।
৬. রান্না করার পর এই ডিমে অনেক সম্যেই বাজে গন্ধ হয়। কিংবা গন্ধ ছাড়া
থাকে। আসল কুসুমের গন্ধ পাওয়া যায় না।
৭. নকল ডিমকে যদি আপনি সাবান বা অন্য কোন তীব্র গন্ধ যুক্ত বস্তুর সাথে রাখেন, ডিমের মাঝে সেই গন্ধ ঢুকে যায়। রান্নার পরেও ডিম থেকে সাবানের গন্ধই পেতে থাকবেন।
৮. নকল ডিমের আরেকটি উল্লেখ্য যোগ্য লক্ষণ হলো ডিম দিয়ে তৈরি খাবারে এটা ডিমের কাজ করে না। যেমন পুডিং বা কাবাবে ডিম দিলেন বাইনডার হিসাবে। কিন্তু রান্নার পর দেখবেন কাবাব ফেটে যাবে, পুডিং জমবে না।
১০. নকল ডিমের আকৃতি অন্য ডিমের তুলনায় তুলনামূলক লম্বাটে ধরণের হয়ে থাকে।
১১. নকল ডিমের কুসুমের চারপাশে রাসায়নিকের পর্দা থাকে বিধায় কাঁচা কিংবা রান্না অবস্থাতে কুসুম সহজে ভাঙতে চায় না।