কানাডার বাংলাদেশ ফেস্টিভ্যাল ২০১৭’তে হাজারো মানুষের ঢল

সদেরা সুজন, সিবিএনএ, কানাডা থেকে,

চোখ ঝলসানো আয়োজনে পর্দা নামলো কানাডার বাংলাদেশী কমিউনিটির সর্ববৃহৎ ইনডোর ইভেন্ট বাংলাদেশ ফেস্টিভ্যাল ২০১৭ এর। যেমনটি প্রত্যাশা করা হয়েছিলো তেমনটিই ঘটলো। প্রথমদিনের টিকিট ছিলো সোল্ডআউট। টিকিট না পেয়ে ফিরে গেছেন অনেকে।

দ্বিতীয়দিনেও সোল্ডআউট হয়েছে টিকিট। পুরো অডিটোরিয়ামে তিল ধারণের স্থান ছিলো না। কানাডার সর্বাধিক পঠিত বাংলা সংবাদপত্র সাপ্তাহিক বাংলামেইল আয়োজিত তৃতীয় বাংলাদেশ ফেস্টিভ্যালের দুইদিনের পর্দা উঠেছে এভাবেই।

টানা দুইবারের উপচেপড়া দর্শক আর অভাবনীয় সাফল্য নিয়েই আয়োজন করা হয়েছিলো তৃতীয় বাংলাদেশ ফেস্টিভ্যালের। গত ১৩ মে শনিবার সন্ধ্যায় জমকালো এই ফেস্টিভ্যালের উদ্বোধন করেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের কানাডাস্থ হাইকমিশনার মিজানুর রহমান খান।

প্রধান অতিথি ছিলেন অন্টারিও কানাডার ইমিগ্রেশন ও সিটিজেনশীপ মিনিস্টার লরা এ্যালবানিজ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অন্টারি কানাডার বিরোধীদল কনজারভেটিভ পার্টির প্রধান প্যাট্রিক ব্রাউন এমপিপি, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অর্থমন্ত্রণালয়ের এডিশনাল সেক্রেটারি কামরুন নাহার আহমেদ, ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন অন্টারি’র প্রেসিডেন্ট এবং ভিসি ড. অমিত চাকমা, টানা তিনবারের বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের সদস্য মনিরুল ইসলাম মনি, বিশিষ্ট কলামিস্ট, শেরিডিয়ান কলেজ সিনেটের স্পীকার ড. মোজাম্মেল খান, হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের এমডি দেবাশীষ চক্রবর্তী ও টরন্টো ডিস্ট্রিক্ট স্কুল বোর্ডের ট্রাস্টি পার্থি কান্ডেভাল ও ইয়র্ক রিজিওনাল পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা পল চ্যাং।

উদ্বোধনী পর্বে উপস্থিত ছিলেন ফেস্টিভ্যাল কমিটির চেয়ারম্যান রেজাউল কবির, চীফ কনভেনর আব্দুল হালিম মিয়া, কনভেনর শহিদুল ইসলাম মিন্টু, সিবিএ’র পরিচালক ব্যারিস্টার কামরুল হাফিজ, বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা শরিফ সালাম, ফেস্টিভ্যালের পাওয়ারড বাই রিয়েলটর আব্দুল আউয়াল, কো-টাইটেল স্পন্সর ওকপার্ক মর্টগেজ গ্রুপের ম্যানেজিং পার্টনার আসাবউদ্দীন খান আসাদ, কানাডা ন্যাশনাল কনস্ট্রাকশন ইনকের সিইও মোহাম্মদ হাসান, অক্সফোর্ড কলেজের সিইও ওয়াজিউদ্দীন, রেড্ডিস ক্লিনিকের সিইও ডা. ডি ডি রেড্ডি, ফেস্টিভ্যালের চীফ কো-অর্ডিনেটর ইউসুফ শেখ, কোঅর্ডিনেটর নাজমুল মুন্সী, সিরাজুল ইসলাম, এনআরবি টিভির কো-চেয়ারম্যান মাশকে জান্নাত, চীফ এ্যাডমিনিস্ট্রেটর স্বপ্না দাশ, প্রোগ্রাম ডিরেক্টর আফিয়া বেগম প্রমুখ।

canada bangladeshi sk 1
কানাডার বাংলাদেশ ফেস্টিভ্যালে হাজারো মানুষের ঢল

সাপ্তাহিক বাংলামেইল আয়োজিত তৃতীয় বাংলাদেশ ফেস্টিভ্যালের দুইদিনের টানা ছয়ঘন্টার আয়োজনে উপস্থাপনা করেন অজন্তা চৌধুরী, দিলারা নাহার বাবু, আসমা হক, ফারহানা আহমেদ ও মাহবুবুল হক ওসমানী।

স্থানীয় গুণী শিল্পীদের পরিবেশনাও ছিলো প্রশংসনীয়। সঙ্গীত পরিবেশন করেন রোবেন ইউসুফ, আইরিন আলম, মুক্তি প্রসাদ, সঙ্গীতা মুখার্জী, সুমী বর্মন, শাওন ইউসুফ, মাশকে জান্নাত, রাফিকা রশিদ ডোনি ও শাহানা কাজী।

canada bangladeshi sk 3
বাংলা সঙ্গীতের দুই জীবন্ত কিংবদন্তী সাবিনা ইয়াসমীন এবং সৈয়দ আব্দুল হাদী

নৃত্য পরিবেশন করেন বিপ্লব কর, অবন্তী মুখার্জীসহ আরো অনেকে। উদ্বোধনী পর্বে ওস্তাদ দীপঙ্কর গাঙ্গুলির বাশিঁর সুরের মূর্চ্ছনায় আলোড়িত হয় দর্শক হৃদয়। মিসেস সাউথ এশিয়া কানাডা ২০১৬ বিজয়ী শর্মিনী রায় নারী উন্নয়ন বিষয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন। মন্ট্রিয়লের কানাডা-বাংলাদেশ সলিডারিটির পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানান সংগঠক জিয়াউল হক জিয়া।

দুই বাংলার জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ফেরদৌস ছিলেন দুইদিনের আয়োজনেই। আর অবশেষে সকল প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে বাংলা সঙ্গীতের দুই জীবন্ত কিংবদন্তী সাবিনা ইয়াসমীন এবং সৈয়দ আব্দুল হাদী টানা কয়েকঘন্টা দর্শক হৃদয় মাতিয়ে রাখেন। এবং সর্বশেষ তারা দ্বৈত গানও পরিবেশন করেন। মধ্যরাত অবধি চলে তাদের পরিবেশনা। তৃপ্তির ঢেকুর তুলে বাড়ি ফেরেন দর্শক।

বাংলা সঙ্গীতের জীবন্ত দুই কিংবদন্তী শিল্পী সাবিনা ইয়াসমীন এবং সৈয়দ আব্দুল হাদীকে এনআরবি টিভি এবং নাহিদ’স ভাসাভী’স কালেকশনের পক্ষ থেকে এনআরবি নাহিদ’স ভাসাভী’স কালেকশন এ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়। নাহিদ’স ভাসাভী’স কালেকশন এর পক্ষে নাহিদ আক্তার এই দুই শিল্পীর হাতে এ্যাওয়ার্ডটি তুলে দেন। বাংলাদেশ ফেস্টিভ্যালের কনভেনর শহিদুল ইসলাম মিন্টু বলেন, কৃতজ্ঞতা দর্শক, স্পন্সর, কলা-কুশলী এবং ভলান্টিয়ারদের।

canada bangladeshi sk 2
ছবিতে- দুই বাংলার জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ফেরদৌস

সকলের সম্মিলিত চেষ্টায় আজকের এই সাফল্য। চীফ কনভেনর আব্দুল হালিম মিয়া বলেন, তৃতীয় বাংলাদেশ ফেস্টিভ্যালের সমাপ্তির মধ্য দিয়ে চতুর্থ বাংলাদেশ ফেস্টিভ্যালের প্রস্তুতি শুরু হলো। পরপর তিনটি সফল আয়োজন প্রমাণ করে আমরা ঐক্যবদ্ধ।

বাংলাদেশ ফেস্টিভ্যাল ২০১৭ উপলক্ষে শুভেচ্ছাবাণী দিয়েছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রি জাস্টিন ট্রুডো, অন্টারিও কানাডার প্রিমিয়ার ক্যাথলিন উইন, টরন্টো সিটির মেয়র জন টরি, অন্টারিও কানাডার সিটিজেনশীপ ও ইমিগ্রেশন মিনিস্টার ল্যরা এ্যালবানিজ, এডুকেশন মিনিস্টার মিটজি হান্টার, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, কানাডাস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনার মিজানুর রহমান খান, টরন্টো পুলিশের সাবেক চীফ বিল ব্লেয়ার এমপি, ন্যাথানিয়েল এরিস্কিন-স্মিথ এমপি, অন্টারিও কানাডার প্রভিন্সিয়াল পার্লামেন্টের বিরোধী দলীয় নেতা প্যাট্রিক ব্রাউন এমপিপি।