অর্ডারের পর চা দিতে দেরি! ক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ কর্মীদের ছোড়া গরম পানিতে ঝলসালো দুই দোকানী

সময়ের কণ্ঠস্বর, নাটোর প্রতিনিধি-
চায়ের অর্ডার দেবার পর পরিবেশনে দেরি হবার দায়ে দুই দোকানিকে গরম পানি দিয়ে ঝলসে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে। এসময় তাদের দোকানও ভাংচুর করার অভিযোগও উঠেছে। তবে এমন অভিযোগ অস্বীকার করে ঘটনার সময় উপস্থিত থাকা ছাত্রলীগের এক নেতা জানিয়েছেন, দোকানীদের ছূড়ে দেয়া গরম পানিতে তারা নিজেই ঝলসেছেন।

বৃহষ্পতিবার দুপুরে নাটোরের নবাব সিরাজ-উদ দৌলা-সরকারী কলেজের সামনে রুস্তমের চা স্টলে এ ঘটনা ঘটে। তবে এ ঘটনায় নিজের সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করে কলেজ ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার রিয়ন দাবী করেন, চা চাইতে গেলে তিনি উল্টো দোকানীদের হামলার শিকার হন।

ঘটনার শিকার দোকানীদের একজন সময়ের কণ্ঠস্বর জানান, কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার রিয়নসহ দলের নেতাকর্মীরা চায়ের দোকানে বসে ২০ কাপ চায়ের অর্ডার দেন। কিন্তু দোকানদার মোস্তফা চা দিতে দেরি হওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে তারা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বৃহষ্পতিবার সকালে সিলেটে ছাত্রলীগ কর্মীর উপর হামলার ঘটনায় বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশ করে কলেজ শাখা ছাত্রলীগ। সমাবেশ শেষে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার রিওনসহ নেতাকর্মীরা চা পানের জন্য কলেজ গেইট সংলগ্ন আমিরের চায়ের দোকানে যায়। সেখানে চা না পেয়ে তারা ওই দোকানে বসে পাশ্ববর্তী রুস্তমের দোকানে চায়ের অর্ডার দিতে বিপুল নামে এক ছাত্রলীগ কর্মীকে পাঠায়।

এ সময় দোকানে থাকা রুস্তমের ছোট ভাই ডলার দোকানের বাইরে চা দেবে না জানালে কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রিওন ক্ষিপ্ত হয়ে ওই দোকানে আসে ও কয়েকটি চায়ের কাপ ভেঙ্গে ফেলে। এ সময় আরেক দোকানে বসে থাকা ছাত্রলীগ কর্মীরা রিওয়েন সাথে যোগ দিয়ে ওই দেকানের চেয়ার-টেবিলসহ দোকানের মালামাল ভাংচুর করে। এক পর্যায়ে দোকানদার ডলারের ভাই মোস্তফা ও রুস্তম তাদের বাধা দিতে এলে চুলায় থাকা গরম পানির কেটলি ছুড়ে মারে ক্ষিপ্ত ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। এতে মোস্তফা ও রুস্তমের শরীরের বিভিন্ন অংশ পুড়ে যায়।

চা দোকানী ডলার জানান, ‘চা না দেয়ায় ছাত্রলীগ নেতা রিওন ক্ষিপ্ত হয়ে দোকানে ঢুকে শাসিয়ে যায় যেন আর চা না বিক্রি করি। বাইরে চা না দেয়ার কথা বললেও সে ক্ষিপ্ত হয়ে দোকানে ভাঙচুর চালায়। এক পর্যায়ে সে গরম পানি ভর্তি কেটলি ছুঁড়ে মারে।’

চা দোকানী অপর সহোদর গোলাম মোস্তফা জানান,‘আমি রিওনকে বাধা দিতে গেলে আমাদের লক্ষ্য করে সে গরম পানি ভর্তি কেটলি ছুঁড়ে মারে। এত আমার বুকের বেশ কিছু জায়গা ঝলসে চামড়া উঠে যায় ও আমার ভাই রুস্তমের কপাল ঝলসে যায়।’ খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছালে ছাত্রলীগ নেতা কর্মীরা সটকে পড়ে।

তবে এমন অভিযোগ অস্বীকার করে কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার রিয়ন চা দোকানী দুই ভাইকে দায়ী করে জানান, কেন চা দেবে না জানতে চাইলে তারা অশালীন ভাষায় গালাগালি করে। এক পর্যায়ে রাগ করে আমি একটা চায়ের কাপ ভেঙ্গে ফেলি। এতে চা দোকানী ডলার ক্ষিপ্ত হয়ে রড দিয়ে আমায় আঘাত করে। এ আনান্য কর্মীরা উপস্থিত হলে ডলার তার ভাইদের ডেকে নিয়ে আমাদের উপর হামলা চালায়। আমরা প্রতিরোধ করলে গরম পানি ভর্তি কেটলি আমাদের দিকে ছুঁড়ে মারতে গিয়ে তাদের গায়েই লেগে যায়। রিওন দাবী করেন, ছাত্রলীগের কেউ তাদের গায়ে গরম পানি ছুঁড়ে মারেনি।’

দগ্ধদের অবস্থা আশঙ্কামুক্ত বলে জানিয়েছে চিকিৎসক।

এ সম্পর্কে জানতে চাইলে, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে । এ ব্যাপারে অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।