ঈশ্বরদীতে ফুলে ফুলে ভরে গেছে ‘রূপভান’ শিমের ক্ষেত

পাবনা প্রতিনিধি:

পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার মুলাডুলি ইউনিয়নের পতিরাজপুর গ্রামের আলহাজ্ব আব্দুল মজিদ শেখের পুত্র আলহাজ্ব মোঃ আব্দুল হাকিম শেখের খামারে ‘রূপভানের’ ফুলে ফুলে ভরে গেছে বিস্তীর্ণ শিমের মাঠ। দেশের প্রধান শিম উৎপাদনকারি এলাকা হিসেবে পরিচিত ঈশ্বরদীতে শিমের আগাম জাত রূপভান শিম চাষ করে ব্যাপক লাভবান হয়েছেন শিম চাষি আব্দুল হাকিম। তিনি তার ৫ বিঘা শিম ক্ষেত থেকে ইতোমধ্যে দুই লক্ষ টাকার শিম বিক্রি করেছেন। তার খামারে তাকালে শুধুই শিম চাষের সমারোহ চোখে পড়ে। শিমের ফুলের মহুমহু গন্ধে এক অন্যরকম পরিবেশ বিরাজ করছে।

হাকিম বলেন, ৩৫’শ টাকা মন দরে তার আগাম লাগানো ৫ বিঘা জমি থেকে প্রায় ২ লক্ষ টাকার ‘রূপভান’ শিম ইতোমধ্যে বাজারে বিক্রি করেছেন। খরচের তুলনায় দাম একটু বেশি পাওয়ায় অনেক কৃষকের মুখে হাসি ফুটে উঠেছে। তাই কৃষকরা এখন ‘রূপভান’ শিমের মরা ফুল বাছাই ও ফুল রক্ষার কাজে মহাব্যস্ত। খাওয়া-দাওয়া ছেড়ে শিমের ক্ষেতে ফুল ফলের পরিচর্যার কাজে ব্যাস্ত সময় পার করছেন। অতি বৃষ্টির কারণে অনেক ফুল শিম গাছ থেকে ঝড়ে পড়েছে। তানা হলে আরও বেশি শিম ক্ষেত থেকে উত্তোলন করে বিক্রি করা যেত।

তিনি আরও বলেন, সহজ শর্তে কোন ব্যাংক-বিমা কিংবা সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ঋণ প্রদান করলে খামারটি আরও বেশি প্রসারিত করতে চাই। তিনি বলেন, চাকরি নামের সোনার হরিণের পেছনে না ছুটে কৃষি খামার করে স্বাবলম্বি হওয়া সম্ভব। এতে বেকারত্ব ঘুচবে এবং আর্থিক ভাবে লাভবান হওয়া যায়। তিনি শিক্ষিত বেকার যুবকদের কৃষি খামার করার জন্য আহ্বান জানান।

ঈশ্বরদী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ রওশন জামাল জানান, গত বছর শিম মৌসুমে ঈশ্বরদীতে এক হাজার ৪০০ হেক্টর জমিতে শিম চাষ হয়েছিল। কৃষকরা এখন আগাম জাতের ‘রূপভান’ শিম চাষে ব্যস্ত রয়েছে, তাছাড়া ফলনও বাজারে উঠতে শুরু করেছে। ‘রূপভানের’ ফুলে ফুলে ভরে গেছে অনেক কৃষকের শিমের মাঠ। এদিকে দেশিয় জাতের শিম চাষের জন্য কৃষকরা এখন পুরোদমে বেড তৈরি কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন। কৃষি বিভাগ কৃষকদের সার্বিক সহযোগিতা করছে বলেও তিনি জানান।