ঝিনাইদহের ১৫৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ডিজিটাল হাজিরা ও ডাইনামিক ওয়েবসাইট উদ্বোধন

আরাফাতুজ্জামান, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহের শৈলকুপা ও কোটচাঁদপুর উপজেলার সকল মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে একযোগে ডিজিটাল হাজিরা ও ডাইনামিক ওয়েবসাইট উদ্বোধন করা হয়েছে।

এছাড়াও জেলার কালীগঞ্জ, মহেশপুর, হরিণাকুন্ডু ও সদর উপজেলার সর্বমোট ১শ ৫৫ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এ সেবা চালু করা হয়েছে। উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ে এ ওয়েবসাইটের উদ্বোধন করা হয়। শৈলকুপা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উসমান গনির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক প্রতিমন্ত্রী আব্দুল হাই এমপি।

বিশেষ অতিথি হিসিবে উপস্থিত ছিলেন ঝিনাইদহের জেলা প্রশাসক জাকির হোসেন, উপজেলা চেয়ারম্যান শিকদার মোশাররফ হোসেন সোনা, ভাইস চেয়ারম্যান শামীম হোসেন মোল্লা, শৈলকুপা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) এস এম মুনিম লিংকন, জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জাফর সাদিক চৌধুরী, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শামীম আহমেদ খান।

আলোচনা সভার শুরুতে আনুষ্ঠানিক ভাবে উপজেলার ৫৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একযোগে এ সিস্টেম চালু করা হয়। অপরদিকে সোমবার কোটচাঁদপুর উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ডিজিটাল হাজিরা ও ডাইনামিক ওয়েবসাইট উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক জাকির হোসেন। সে সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাম্মী ইসলামসহ শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। মঙ্গলবার বিকেলে শহরের কাঞ্চননগর মডেল স্কুল এন্ড কলেজে আনুষ্ঠানিক ভাবে ডিজিটাল হাজিরা ও ওয়েবসাইট উদ্বোধন করা হয়।

সে সময় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা সভাপতিত্ব করেন প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এ্যাড. আজিজুর রহমান। অধ্যক্ষ প্রদীপ কুমার বিশ্বাসের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক জাকির হোসেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়ারুল ইসলাম, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এম এ আরিফ সরকার ও জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি আক্কাস আলী।

এ পদ্ধতি চালু করার মাধ্যমে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের প্রতিদিন উপস্থিতি জানানো হবে অভিভাবকদের। এর ফলে ক্লাসে উপস্থিতি বাড়বে এবং লেখাপড়ায়ও তারা মনোযোগী হবে। বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে হাজিরা নেওয়া হলে স্কুল ফাঁকি দেওয়ার সুযোগ পাবেনা কোন শিক্ষার্থী। শিক্ষার্থীরা স্কুলে হাজির হলে বা স্কুল ত্যাগ করলে তা ম্যাসেজের মাধ্যমে তার অভিভবকরা বাসায় বসেই জানতে পারবেন। এছাড়াও ওয়েবসাইটের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ফলাফল, হাজিরা সম্পর্কে জানা যাবে বলে জানান আয়োজকরা।