‘লাব্বাইক, আল্লাহুম্মা লাব্বাইক’ ধ্বনিতে মুখরিত আরাফার ময়দান

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক– শুরু হলো পবিত্র হজ। মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় সমাবেশ এটি। আজ বৃহস্পতিবার সূর্যোদয়ের পর থেকে আরাফাতের ময়দানে অবস্থান নিয়েছেন বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা প্রায় ২০ লাখ হাজি। তার মধ্যে বাংলাদেশ থেকে এবার এক লাখ ২৭ হাজার ২২৯ জন হজ পালন করছেন।

ধবধবে সাদা দুই টুকরো ইহরাম পরিহিত অবস্থায় আল্লাহর নৈকট্য লাভের আশায় লাখ লাখ হাজির কণ্ঠে উচ্চারিত হচ্ছে ‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইক লা শারিকা লাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হামদা ওয়াননি মাতা লাকা ওয়ালমুল লা শারিকালাক’। এর বাংলা অর্থ হচ্ছে, ‘আমি হাজির। হে আল্লাহ আমি হাজির। তোমার কোনো শরিক নেই। সব প্রশংসা ও নিয়ামত শুধুই তোমার। সব সাম্রাজ্য তোমার।’

তাই তো আজ দিনভর আরাফার ময়দানে রাব্বুল আলামিনের অনুভব, অনুভূতির শিহরণ হবে প্রেমিক মনে। জীবনের আপদমস্তক গোনার দৃশ্য স্মরণ করে হৃদয়ভাঙা আহাজারি করবেন হাজিরা- ক্ষমা করুন, করুণা ধারা বর্ষণ করুন, হে রাব্বুল আলামিন দৃশ্য অদৃশ্য জগতের মালিক। হৃদয় ফাটা আর্তনাদে মরুর বুক ভেসে যাবে কান্নায়। লাব্বাইক আল্লাহুমা লাব্বাইক- আমি হাজির, আমি হাজির বেজে উঠবে। আত্মা আর পরমাত্মার সুরে সিজদাবনত হবে আরাফাবাসী।

হাজীরা আজ মাওলার প্রেমে মজে থেকে রাব্বুল আলামিনের অকূল সাগর পাড়ি দেবেন প্রেম তরীতে। কাফনের সাদা দু’টুকরা ইহরামের কাপড় পরে মহান আল্লাহর সান্নিধ্য লাভের জন্য ব্যাকুল তারা। আশেক আর মাশুকের প্রেমময় আবহে বিরাজ করবে মুসলিম উম্মাহর ঐক্য, সংহতি ও ভ্রাতৃত্বের এক অনুপম দৃশ্য।

ফজরের নামাজ মিনায় আদায় করার পরপরই হাজীরা ইহরাম বাঁধা অবস্থায় ছুটেন আরাফার ময়দানে। লাব্বাইক, লাব্বাইক সুর ধ্বনি তুলে রাব্বুল আলামিনের কাছে নিজের উপস্থিতি জানান দেন তারা। ক্ষমা ও মুক্তির জন্য হাজীরা সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত আরাফার ময়দানে রোনাজারি করবেন। কেউ পাহাড়ের কাছে, গাছের নিচে, তাঁবুর ভেতর, কেউ সুবিধাজনক জায়গায় বসে ধ্যান ইবাদত করবেন।

এই আরাফার ময়দানে দাঁড়িয়েই সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) আজ থেকে চৌদ্দশ বছর আগে বিদায় হজের ঐতিহাসিক ভাষণ দিয়েছিলেন। লাখো মানুষের উদ্দেশে প্রদত্ত এ ভাষণের পর আল্লাহর পক্ষ থেকে ঘোষণা এসেছিল দ্বীনের পরিপূর্ণতার। আজো সেই ধারাবাহিকতায় খুতবা-ভাষণ দেয়া হয়। ভাষণে গোটা বিশ্বের সার্বিক পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়। মুসলিম উম্মাহর ঐক্য, সংহতি, শান্তি ও সমৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেয়া হয়। আর হাজীরা এক আবেগঘন পরিবেশে মহান আল্লাহর জন্য নিজের জীবন উৎসর্গ করে দেয়ার দৃঢ়প্রত্যয় নিয়ে আহাজারি করতে থাকেন। তারা নিজেদের পাপের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেন, নিজের পরিবার-পরিজন, সমাজ ও রাষ্ট্রের সুখ শান্তির জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করেন।

৯ জিলহজ সূর্যাস্তের পরপরই মুজদালিফার উদ্দেশে আরাফার ময়দান ত্যাগ করবেন হাজীরা। মুজদালিফায় গিয়ে মাগরিব ও এশার নামাজ, এশার ওয়াক্তে একত্রে পড়বেন এবং সারা রাত সেখানে অবস্থান করবেন তারা। মিনায় জামারাতে নিক্ষেপ করার জন্য ৭টি কঙ্কর এখান থেকে সংগ্রহ করবেন। মুজদালিফায় ফজরের নামাজ পড়ে মিনার উদ্দেশে রওনা হবেন। পবিত্র মক্কা থেকে প্রায় ৯ মাইল পূর্ব দিকে একটি পাহাড়ের নাম ‘জাবালে রহমত বা করুণার পাহাড়’।

এ পাহাড় সংলগ্ন দক্ষিণ-পশ্চিমে প্রলম্বিত বিরাট প্রান্তরটি আরাফা প্রান্তর নামে পরিচিত। এর উচ্চতা প্রায় ২০০ ফুট। এ পাহাড়ের পূর্বদিকে পাথরের সিঁড়ি রয়েছে। এর ষষ্ঠ ধাপের উচ্চতা বরাবর আগে একটি উন্নত মঞ্চ ও একটি মিম্বর ছিল। এ মিম্বরে দাঁড়িয়ে প্রতি বছর ৯ জিলহজ আরাফার দিন ইমাম খুতবা প্রদান করতেন। এখন আর সেই মঞ্চ ও মিম্বার নেই এবং এখান থেকে হজের খুতবাও প্রদান করা হয় না। বরং এখন খুতবা দেয়া হয় মসজিদে নামিরা থেকে। আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য প্রতি বছর মাত্র ১ দিন হাজীরা আরাফার ময়দানে অবস্থান করেন। হজের সময় আরাফার ময়দানে অবস্থান করা হজের অন্যতম ফরজ বিধান। ইমাম তিরমিযী (রহ.) এ প্রসঙ্গে বলেছেন, আরাফার ময়দানে অবস্থান করার ভাগ্য যার হয়নি তার হজ বাতিল হয়ে যাবে।

আরআই