ঈদে আলোচনায় অপূর্বের আরও এক টেলিফিল্ম ‘দ্য হিরো’

বিনোদন প্রতিবেদক, সময়ের কণ্ঠস্বর- প্রতিবছরই ঈদ উপলক্ষে বিনোদন জগতের মানুষগুলোর ব্যস্ততা বেশিই থাকে। বাহারি আয়োজনে দর্শককে বিনোদিত করার প্রয়াসে মগ্ন থাকেন তারা।

এর মধ্যে অন্যতম নাটক নির্মাতারা। সুন্দর একটি গল্প আর নিজেদের দক্ষ নির্মাণের মাধ্যমে দর্শকের মনের মতো কিছু নাটক উপহার দেওয়ার জন্য তারা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেন। প্রতি ঈদে শত শত নাটক-টেলিফিল্ম প্রচার হয়। কিন্তু এর মধ্যে গুটিকয়েক আলোচনায় আসে, প্রশংসার জোয়ারে ভাসে।

এবারের ঈদুল আজহায় প্রশংসিত টেলিছবির তালিকায় ওপরের দিকে রয়েছে অপূর্ব ও মেহজাবিন অভিনীত ‘বড় ছেলে’। তাদের আবেগাপ্লুত অভিনয় দেখে বেশিরভাগ দর্শকই চোখের জল ধরে রাখতে পারেননি। এর গল্পে রয়েছে একটি মধ্যবিত্ত পরিবারের টানাপড়েন।

এদিকে ঈদে ‘বড় ছেলে’ ছাড়াও আলোচনার এসেছে অপূর্বের আরও একটি টেলিফিল্ম ‘দ্য হিরো’। নাটকে অপূর্ব একজন চলচ্চিত্র সুপারস্টারের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। ভক্তের সঙ্গে তার প্রেম ও পরিণতির করুণ গল্পই এখানে ফুটে উঠেছে।

নাটকের গল্পে দেখা গেছে, অপূর্ব এ টেলিফিল্মে চলচ্চিত্রের শীর্ষ জনপ্রিয় নায়ক। তার পেছনে কোটি কোটি টাকার লগ্নী করছেন প্রযোজকরা। সবাই অপূর্ব’র এক মুহূর্ত সময়ের জন্য তীর্থের কাকের মতো অপেক্ষা করে। কিন্তু অপূর্ব কী চায়? তার জীবনের স্বপ্ন কী? তার কাছে ভালোবাসা কী? লাখো কোটি ভক্তের মধ্য থেকে এক ভক্ত নাদিয়া মীমকে নিয়ে নতুন স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন অপূর্ব। যে মীম পাগলের মতো পছন্দ করেন অপূর্বকে।

কিন্তু নাদিয়া মীম কী চায়? মিমের জীবনে বাস করেন এফএস নাঈম। এমন গল্প নিয়েই নির্মিত হয়েছে ঈদের বিশেষ টেলিফিল্ম দ্য হিরো প্রচারের পর আলোচনায় এসেছে। বিশেষ করে সুপারস্টার অপূর্ব, নাঈমের অভিনয়, নির্মাতা বিশালের মুন্সিয়ানা, চিত্রনাট্যকার রুম্মান রশিদের সংলাপ সবকিছু মিলিয়ে ‘দ্য হিরো’ টেলিফিল্মটি আলোচনায় এসেছে।

এই টেলিফিল্মটি ঈদের ৭ম দিন এনটিভিতে দুপুর ২ টা ২০ মিনিটে প্রচার হয়। প্রচারের পর থেকে ইউটিউবে এখন পর্যন্ত টেলিফিল্মটি দেখেছেন ৪ লক্ষ ৯০ হাজারের বেশি মানুষ।

‘দ্য হিরো’ নাটকটি লিখেছেন রুম্মান রশিদ খান ও পরিচালনা করেছেন মাকসুদুর রহমান বিশাল।

নির্মাতা বিশাল জানান, ‘দর্শকের কাছে এটি ভালো লেগেছে, দেবাশীষ বিশ্বাসের মতো একজন গুনী এবং জনপ্রিয় পরিচালক ফোন করে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এই প্রাপ্তিটাই তো সামনে আরো ভালো কাজ করার অনুপ্রেরণা জোটাবে।’

তিনি বলেন, ‌‘রুম্মান ভাইয়ের এত সুন্দর একটি গল্প উনি যখন ভরসা করে আমাকে দিয়েছেন তখনই উনার বিশ্বাসের মর্যাদা দেবার একটা তাগিদ অনুভব করি। আর নিজের পুরো মেধা এবং যতটুকু জ্ঞান আছে তা উজাড় করে দিয়েছি নির্মাণের সময়ে।’

এনএটি/আরআই