জনগণের সম্পদ লুণ্ঠনকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী

সময়ের কণ্ঠস্বর- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিএনপি-জামায়াতের বিরুদ্ধে সীমাহীন দুর্নীতি এবং লুটতরাজের অভিযোগ এনে জনগণের সম্পদ লুণ্ঠনকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের ইঙ্গিত দিয়েছেন। বুধবার জাতীয় সংসদে জাতীয় পার্টির ফখরুল ইমামের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ ইঙ্গিত দেন।

শুধু দুবাই নয়, অন্তত ১২ দেশে জিয়া পরিবারের সম্পদ আছে, যার প্রাক্কলিত মূল্য এক হাজার ২০০ কোটি টাকা। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান গ্লোবাল ইনটেলিজেন্স নেটওয়ার্ক (জিআইএন) সম্প্রতি এ ধরনের প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বলে সংসদে দাবি করেন ফখরুল ইমাম।

জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তথ্যগুলো যখন বের হয়েছে, তখন নিশ্চয়ই আমাদের কাছে তা আছে। এটা নিয়ে তদন্ত চলছে। তাছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের অধীনে মানি লন্ডারিংয়ের জন্য একটি তদন্তের ব্যবস্থা আছে। সেই সূত্রেও তদন্ত করা হচ্ছে। এই তদন্তেরর মধ্য দিয়ে সত্যতা যাচাই করে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

তিনি বলেন, তদন্ত করে যখনই সঠিক তথ্য পাব কোথায় কীভাবে রয়েছে নিশ্চয় আমরা ফেরত আনার পদক্ষেপ নেব। ইতোমধ্যে আমরা কিছু পদক্ষেপ নিয়েছি। তদন্ত চলার স্বার্থে হয়তো সব আমি বলতে পারলাম না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর মানুষ হত্যা করে, খুন করে। পরবর্তীতে আমরা ক্ষমতায় আসার পর আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মারা থেকে শুরু করে একদিকে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের সৃষ্টি করে অপরদিকে ক্ষমতায় থাকতে দুর্নীতি ও অর্থপাচার এ ধরনের বহু অভিযোগ তো জনগণ সব সময় করেছে এবং এটা সবাই জানে। এজন্য খালেদা জিয়ার ছোট ছেলের টাকা ফেরত আমরা এনেছি। বাংলাদেশের ইতিহাসে পাচার করা টাকা ফেরত আনা সম্ভব হয়েছে আমাদের সরকারের আমলে।

আরআই