বৃদ্ধ বাবা-মায়ের প্রতি অবহেলা! আদালতের কড়া নির্দেশে ২৪ ঘন্টায় বাড়ি থেকে বের করে দেয়া হলো ছেলে বৌমাকে

ভিন্ন খবর ফিচার ডেস্ক- সময়ের কণ্ঠস্বর –

বৃদ্ধ বাবা-মায়ের প্রতি সন্তানের নানা অবহেলা, অত্যাচার এর কত ঘটনাই তো নিত্য ঘটছে! সবই কেমন গা সওয়া হয়ে পড়ছে আমাদের !  এবার অবশ্য সেই ধারাবাহিক ঘটনার ব্যত্যয় ঘটলো আদালতের ভিন্নধর্মী এক রায়ে। ঘটনাটি ঘটেছে আমাদের প্রতিবেশি দেশ ভারতের কোলকাতায়। ইতমধ্যে এই রায়কে যুগোপযোগী উল্লেখ করে সাধুবাদ জানিয়েছেন সচেতন মহল।

সাম্প্রতিক সময়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন গড়িয়ার বাসিন্দা এক বৃদ্ধ মা-বাবা। বৃদ্ধ বয়সে একমাত্র ছেলের কাছে শান্তিতে শেষ জীবনটা কাটানোর ভাগ্য প্রসন্ন হয়নি তাদের। ছেলে আর তার বৌমার হাতে নিয়মিতই অপমান লাঞ্চনা আর অত্যাচারিত হচ্ছিলেন তারা। শেষ অবধি আদালতের দ্বারস্থ হবার পর সবকিছু বিচার বিশ্লেষণ করে বৃদ্ধ দম্পত্তির ছেলে-বৌমাকে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার নির্দেশ দেয় আদালত।

জেলার আলিপুর আদালতেরবিচারবিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেট পবিত্র সেন বাঁশদ্রোনী থানার ওসি কে নির্দেশ দিয়ে বলেন, যে ছেলে বাবা-মাকে সম্মান দেয় না, আদলত তাঁকে গুরুত্ব দেয় না। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ওই ছেলে-বৌমাকে বাড়ি থেকে বের করে দিতে হবে। সেই প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করে আদালতকে রিপোর্ট আকারে জানাতে হবে। অন্যথায়, আদালত পুলিশের বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেবে।

আদালতের সুত্রে জানা যায়, গড়িয়ার বাসিন্দা প্রভাসচন্দ্র ও কৃষ্ণা সাহার অভিযোগ ছিলো , দীর্ঘদিন ধরে তাঁদের ওপর অত্যাচার করছে ছেলে প্রশান্ত ও বৌমা পম্পা। এ নিয়ে অসহায় দম্পত্তি বাঁশদ্রোণী থানায় অভিযোগও দায়ের করেন । কিন্তু তাদের অভিযোগে পাত্তাই দেয়নি পুলিশ। কোনও পদক্ষেপ নেয়নি।

শেষমেশ আলিপুর আদালতের দ্বারস্থ হন তাঁরা। মহিলাদের জন্য পারিবারিক সুরক্ষা আইনের ২৩ নম্বর ধারা অনুযায়ী ছেলের বিরুদ্ধে আবেদন করেন অসহায় ঐ দম্পত্তি ।

সেই মামলাতেই চুলচেরা বিশ্লেষণ শেষে আদালত তার রায়ে বলেন, বাবা-মায়ের প্রতি কর্তব্য ও দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়েছেন ছেলে। তাঁদের সম্মান ক্ষুন্ন করেছেন। সে জন্যই সুবিচার চেয়ে ছেলের বিরুদ্ধে আদালতের দ্বারস্থ হতে বাধ্য হন তাঁরা।

আদালতের রায়ে বিচারকের নির্দেশ, অভিযুক্ত ছেলে প্রতি মাসে বাবা-মাকে ২০ হাজার টাকা করে দেবেন। এছাড়াও ছেলে যে দোকান ঘরটি দখল করে আছেন, সেটিও খালি করতে হবে পুলিশকে।