ফরিদপুরে উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে বাংলার ঐতিহ্যের নৌকা বাইচ

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি: সনাতন ধর্মীয় বিশ্বকর্মা পূজা উপলক্ষে উৎসব মুখর পরিবেশে সাজ সাজ রবে ফরিদপুরে অনুষ্ঠিত হয়েছে গ্রাম বাংলার আবহমান কালের ঐতিহ্যের নৌকা বাইচ।

রবিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ভাঙ্গার কুমার নদে অনুষ্ঠিত নৌকা বাইচে ফরিদপুর গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর থেকে অর্ধশত বাইচি নৌকা অংশ নেয়। ফরিদপুরের নৌকা বাইচ উদযাপন কমিটির আয়োজনে অনুষ্ঠিত নৌকা বাইচে উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজি জাফরউল্লাহ ও সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি নিলুফার জাফরউল্লাহ।

সনাতন ধর্মী রীতি অনুসারে প্রতি বছর এই দিনে জেলার ভাঙ্গা উপজেলার কুমার নদের দুইশত বছর ধরে নৌকা বাইচ পালন হয়ে আসছে। নানা জটিলতায় মাঝে কিছু দিন বন্ধ থাকলেও আর্ন্তজাতিক খ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদের প্রচেষ্ঠায় আবার নৌকা বাইচটি চালু হয়। এরপর থেকে প্রতিবছর জাকজমকপূর্ণ ভাবে নৌকা বাইচ অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

নৌকা বাইচকে কেন্দ্র করে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের দুপাশে হাজার হাজার দোকানিরা নানা পশরা সাজিয়ে বসে। তাদের বেঁচাকেনাও ভালো হয়। এদিকে ভাঙ্গা এ নৌকা বাইচ দেখতে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে লাখ লাখ দর্শনার্থী সমাবেত হয়। দর্শনার্থীরা নৌকা বাইচ দেখে বাড়ি ফেরার পথে তাদের বাড়ির প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনে নিয়ে যায়।

বাইচ শেষে থানা চত্বরে পুরস্কার প্রদান করা হয়। তিন ক্যাটাগরিতে ৯ জনকে ১ম, ২য় ও ৩য় পুরস্কার দেওয়া হয়। ছোট নৌকায় ১ম ভাঙ্গা কোর্ট পাড়ের সাইফুল আলম সোহাগ, ২য় গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর উপজেলার বাটিকামারীর বাহাড়া সবুজ সংঘ, ৩য় ভাঙ্গার বালিয়া গ্রামের আলমগীর হোসেন।

মাঝারী নৌকায় ১ম ভাঙ্গার বড়দিয়ার মান্নান মাতুব্বর, ২য় রাজৈর উপজেলার কদমবাড়ি গ্রামের অমূল্য ভক্ত, ৩য় মুকসুদপুর উপজেলার আলীপুর গ্রামের আঃ রব। বড় নৌকায় ১ম পুরস্কার পায় ভাঙ্গার আলগী ইউনিয়নের বালিয়া গ্রামের বাবু মাতুব্বর, ২য় ভাঙ্গা পৌরসভার নুরপুরের জাকারিয়া মাতুব্বর, ৩য় ভাঙ্গার তুজারপুরের সিরাজ মাতুব্বর। এদের সকলকে এলইডি টেলিভিশন উপহার দেওয়া হয়।

কয়েকেজন দর্শনার্থী বলেন, নৌকা বাইচ দেখ তারা খুব মজা করেছে। নৌকা বাইচকে কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে অতিথিরাও এসেছে। তারা দেখছে নৌকা বাইচ আর উপভোগ করছে বাইচকে কেন্দ্র করে মেলা। বাড়ির জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে যাচ্ছে।

কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজি জাফরউল্লাহ ও সংরক্ষিত আসনের এমপি নিলুফার জাফরউল্লাহ বলেন, বিগত দুই শত বছর ধরে পালিত হচ্ছে নৌকা বাইচ। গ্রাম বাংলার এই ঐতিহ্যটি প্রতিবছর ধারাবাহিকভাবে পালন করা হবে।

নৌকা বাইচকে কেন্দ্র করে ফরিদপুরের জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান খন্দকার মোহতেশাম হোসেন বাবর, কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা কামরুজ্জমান কাফিসহ জেলা র্শীষ নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যের নৌকা বাইচ প্রতি বছর অনুষ্ঠিত হোক এটাই জেলার সাধারণ মানুষ আশা করছে। এতে দেশের প্রায় হারিয়ে যাওয়া এ ঐতিহ্যটি ফিরে আসবে তার আপন মহিমায়। আর নৌকা বাইচের মধ্য দিয়ে আনন্দ পাবে দেশের সাধারণ মানুষ।