অবশেষে সেই বৃদ্ধা মায়ের দায়ভার নিলেন স্থানীয় সাংসদ, পুলিশ পুত্র ও শিক্ষিকা মেয়ের বিরুদ্ধে নেয়া হচ্ছে ব্যবস্থা

মশিউর দিপু, বরিশাল থেকে, সময়ের কণ্ঠস্বর:

৫ সন্তান প্রতিষ্ঠিত, তবুও বৃদ্ধা মায়ের হাতে ভিক্ষার থালা! শিরোনামে সময়ের কন্ঠস্বর সহ বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পর দেশব্যাপী আলোরন সৃষ্টি হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ওই খবর মূহুর্তেই ছড়িয়ে পড়লে সাধারন জনতাকে ওই বৃদ্ধের সন্তানদের উদ্দেশ্যে ধিক্কার দিয়ে মন্তব্য করতে দেখা গেছে।

সংবাদটি জানতে পেরে সোমবার দুপুরে বরিশাল-৩ (বাবুগঞ্জ-মুলাদী) আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শেখ মো. টিপু সুলতানের নির্দেশে সোমবার দুপুর ১২টার দিকে বাবুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দিপক কুমার রায় মনোয়ারা বেগমের বাড়িতে যান। এরপর চিকিৎসার জন্য অসুস্থ মনোয়ারা বেগমকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে প্রেরন করেন। সংসদ সদস্য শেখ মোঃ টিপু সুলতান ওই মায়ের চিকিৎসাসহ যাবতীয় ব্যয়ভার বহন করবেন বলে জানাগেছে।

অপরদিকে বৃদ্ধা মায়ের তিন পুলিশ পুত্র ও শিক্ষিকা মেয়ের বিরুদ্ধে নেয়া হচ্ছে ব্যবস্থা। নিজ সন্তানদের অবহেলায় বৃদ্ধা মায়ের ভিক্ষার পথ বেছে নেয়ার ঘটনাটি জানতে পেরে সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শেখ মো. টিপু সুলতান মনোয়ারা বেগমের উন্নত চিকিৎসার পাশাপাশি বৃদ্ধা মায়ের প্রতি অবহেলার কারণে পুলিশ কর্মকর্তা তিন ছেলে এবং শিক্ষিকা মেয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বরিশাল জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও ইউএনও’র সঙ্গে কথা বলেছেন।

এ বিষয়ে বাবুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দিপক কুমার রায় জানান, স্থানীয় সংসদ সদস্যের নির্দেশে তিনি মনোয়ারা বেগমের বাড়িতে যান। চিকিৎসার জন্য সেখান থেকে তাকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি মায়ের প্রতি অবহেলার কারণে মনোয়ারা বেগমের মেয়ে বাবুগঞ্জ উপজেলার পূর্ব ভূতেরদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা মরিয়ম সুলতানাকে শোকজ করা হয়েছে।

শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালক এসএম সিরাজুল ইসলাম জানান, অসুস্থ মনোয়ারা বেগমকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বৃদ্ধা মনোয়ারা বেগম পুষ্টিহীনতায় ভুগছেন। এছাড়া তার এক পায়ে ফ্যাকচার রয়েছে। তাকে সেবা এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শেখ মো. টিপু সুলতান সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, বিষয়টি সকালে জানার পর আমি খুবই ব্যাথিত হয়েছি। তাই সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে পাঠিয়ে অসুস্থ মনোয়ারা বেগমকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে এসে ভর্তি করা হয়েছে। বৃদ্ধা মায়ের প্রতি অবহেলার কারণে পুলিশ কর্মকর্তা তিন ছেলে এবং শিক্ষিকা মেয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বরিশাল জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও ইউএনও’র সঙ্গে তিনি কথা বলেছেন বলে জানান। অসুস্থ মনোয়ারা বেগমের চিকিৎসাসহ যাবতীয় ব্যয়ভার তিনিই বহন করবেন বলেও জানিয়েছেন।