খুলনায় শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তু‌তিমূলক সভা অনুষ্ঠিত

জিএস‌কে শান্ত, স্টাফ ক‌রেসপ‌ন্ডেন্ট: খুলনায় শারদীয় দুর্গাপূজা-২০১৭ সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে উদযাপনের লক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক সভা অনু‌ষ্ঠিত হ‌য়ে‌ছে।

আজ মঙ্গলবার (১৯ সে‌প্টেম্বর) সকালে খুলনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক মোঃ আমিন উল আহসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য মুহাম্মদ মিজানুর রহমান।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সংসদ সদস্য বলেন, আবহমান কাল ধরে বাংলাদেশে শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপিত হয়ে আসছে। বিগত বছরগুলোতে খুলনাতে এই অনুষ্ঠান অত্যন্ত জাকজমকপূর্ণ ভাবে সকল ধর্মের মানুষের অংশ গ্রহণের মধ্য দিয়ে উদযাপিত হয় এবং এবারও তার ব্যতিক্রম হবে না।

খুলনাকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির শহর উল্লেখ করে প্রধান অতিথি বলেন, ধর্ম যার যার উৎসব সবার। তাই এই অনুষ্ঠানে যেন সকল মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ গ্রহণ করতে পারে সে জন্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে পূজা উদযাপন কমিটির সুষ্ঠু সমন্বয়ের মাধ্যমে কাজ করতে হবে।

সভাপতির বক্তৃতায় জেলা প্রশাসক বলেন, নিরাপত্তার ক্ষেত্রে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এ জন্য তিনি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি এবং ওজোপাডিকোকে বিশেষ নজর দেওয়ার অনুরোধ করেন। পাশাপাশি বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে জেনারেটরের ব্যবস্থা এবং মন্ডপগুলোতে সিসি ক্যামেরা স্থাপ‌নের আহ্বান করেন। তবে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ না নেওয়ার জন্য তিনি উদযাপন কমিটিকে অনুরোধ করেন।

সভায় গুরুত্বপূর্ণ কিছু সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। তন্মধ্যে অন্যতম হচ্ছে রাত ৮টার মধ্যে প্রতিমা বিসর্জনের কাজ শেষ করতে হবে। মূল রাস্তায় কোন মেলা বা দোকান বসানো যাবে না। আযান ও নামাজের সময় মাইক বন্ধ রাখতে হবে। প্রত্যেক পূজা মন্ডপে পুলিশের পাশাপাশি মহিলা আনসার সদস্য মোতায়েন থাকবে। পূজাকে কেন্দ্র করে মাদকদ্রব্যের ব্যবহার বা কোন অপসংস্কৃতি যেন চর্চা না হয় সেদিকে বিশেষভাবে লক্ষ্য রাখতে হবে। পূজা উদযাপন কমিটির প্রত্যেক মন্ডপে স্বেচ্ছাসেবক টিম থাকবে যারা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাথে সমন্বয়ের মাধ্যমে কাজ করবে এবং তাদের তালিকা সংশ্লিষ্ট থানায় জমা দিতে হবে।

সভায় বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ এর মহানগর শাখার সভাপতি শ্যামল হালদার, সাধারণ সম্পাদক প্রশান্ত কুমার কুন্ডু, জেলা শাখার সভাপতি বিজয় কুমার ঘোষসহ সকল উপজেলা শাখার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, কেএমপি, র‌্যাব, জেলা পুলিশ প্রতিনিধি এবং অন্যান্য সরকারি দপ্তরের উর্দ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, মহানগরীতে ১২২টি সহ খুলনা জেলায় মোট ৯৪৮টি মন্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপিত হবে।