ফুলবাড়ীতে ছাত্রলীগ নেতার হাতে জেলা পরিষদ সদস্য লাঞ্চিত, প্রতিবাদে হরতাল ও বিক্ষোভ

অনীল চন্দ্র রায়, ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি-  কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক মেহেদি হাসানসহ একটি গ্রুপ এর হাতে লাঞ্চিত হয়েছেন জেলা পরিষদের সদস্য ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগাঠনিক সম্পাদক এবং সাবেক উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আহম্মদ আলী পোদ্দার রতন।

গত মঙ্গলবার রাতে উপজেলা সদরের জেলেপাড়ায় ঘটে এ ঘটনা। এ নিয়ে বুধবার সকাল ৬ টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত ফুলবাড়ী উপজেলা শহরে অর্ধবেলা হরতাল শেষে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় বক্তব্য রাখেন, সাবেক ছাত্র নেতা ও ইউপি সদস্য আব্দুল লতিফ, প্রভাষক জাকারিয়া মিয়া, অধ্যক্ষ নুর মহাম্মদ,টেংরু চন্দ্র বিশ্বাস প্রমূখ। বক্তারা জানান, আগামী ২৪ ঘন্টায় অপরাধীদের গ্রেফতারের আহবান জানান। তা নাহলে ফুলবাড়ী অচল করে দেয়ার হুমকী প্রদান করেন।

এদিকে পুলিশ যে কোন সংঘাত এড়াতে উপজেলা শহরের মোড়ে মোড়ে অবস্থান নিয়েছে। হরতাল চলাকালে দোকান পাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ সকল প্রকার যানবাহন বন্ধ ছিল।

জানা গেছে, সদর ইউনিয়নের জেলেপাড়ায় নারী সংক্রান্ত বিরোধ মীমাংসা করতে যান জেলা পরিষদের সদস্য আহম্মদ আলী পোদ্দার রতন। সেখানে উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান তার সাঙ্গ পাঙ্গ নিয়ে উপস্থিত হয়ে আহম্মদ আলী পোদ্দার রতনের সাথে বাক বিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে মেহেদী তার সঙ্গীদের নিয়ে রতনকে এলাপাথারি কিল ঘুষি ও ইট দিয়ে আঘাত করতে থাকেন। এ সময় মাথায় আঘাত পেয়ে গুরুতর আহত হন রতন। পরে স্থানীরা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে ফুলবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্ল্রেক্সে পরে অবস্থার অবনতি হলে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ঘটনার পরপরই রতনের উত্তেজিত সমর্থকরা মেহেদী ও তার সঙ্গীদের খোঁজে লাঠি হাতে নিয়ে বেড়িয়ে পড়ে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারলেও বর্তমানে ফুলবাড়ীতে থমথমে অবস্থা বিরাজ করে।

এ প্রসঙ্গে জানতে অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা মেহেদী হাসানের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তার ব্যবহৃত মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এমদাদুল হক মিলন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, দলীয় ফোরামে আলোচনা করে মেহেদী হাসানসহ অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি খন্দকার ওয়াহিদুন্নবী সাগর জানান, আমি ঘটনাটি শুনেছি। তদন্ত সাপেক্ষে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, আহম্মদ আলী পোদ্দার রতন নব্বইয়ের দশকে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এবং উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান। বর্তমানে তিনি কুড়িগ্রাম জেলা পরিষদের নির্বাচিত সদস্য।

সময়ের কণ্ঠস্বর/রবি