রোহিঙ্গাদের জন্য দেড় কোটি ডলার দেবে সৌদি আরব

আন্তর্জাতিক ডেস্ক– মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নৃশংসতা ও দমন-পীড়নের শিকার সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমদের জন্য দেড় কোটি ডলার সহায়তার ঘোষণা দিয়েছেন সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ আল সৌদ। বাংলাদেশি টাকায় যার পরিমাণ ১২২ কোটি ৯৬ লাখ ২৬ হাজার টাকা।

সৌদির রয়্যাল কোর্টের উপদেষ্টা ও কিং সালমান সেন্টার ফর রিলিফ অ্যান্ড হিউম্যানিটারিয়ান ওয়ার্কের তত্ত্বাবধায়ক ড. আবদুল্লাহ আল-রাবিয়াহ এই ঘোষণা দিয়েছেন। সৌদি প্রেস এজেন্সিতে (এসপিএ) প্রকাশিত এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার তিনি বলেন, সালমান সেন্টারের একটি বিশেষ দল রোহিঙ্গাদের দুর্দশার চিত্র নির্ণয় করতে বাংলাদেশে যাবে। সেখানে তারা নির্ধারণ করবে শরণার্থীদের ত্রাণ, মানবিক সাহায্য ও আশ্রয়সহ কোন ধরনের জরুরি সহযোগিতা প্রয়োজন।

তিনি জানান, বাদশার নির্দেশনা অনুযায়ী শরণার্থীদের সহযোগিতার জন্য বিভিন্ন ধরনের প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে, এর মধ্যে কিছু প্রকল্প বিভিন্ন স্তরে বাস্তবায়ন করা হবে।

চলতি সপ্তাহে সৌদি মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে মিয়ানমারের মুসলমানদের ওপর ভয়াবহ নির্যাতনের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব পাস হয়েছে।

মিয়ানমারের সংখ্যালঘু মুসলমানদের ওপর নির্যাতন বন্ধ করে কোনো ধরনের বৈষম্য ও বর্ণবাদী বিভাজন ছাড়াই তাদের সমান অধিকার দিতে সৌদি বাদশা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে জরুরি ব্যবস্থা দিতে যে আহ্বান জানিয়েছিলেন তা মন্ত্রিপরিষদ পুনর্ব্যক্ত করেছে।

জেদ্দার আল সালাম প্রাসাদে সাপ্তাহিক ওই অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন সৌদি বাদশাহ এবং দুই পবিত্র মসজিদ মক্কা মুকাররমা ও মসজিদে নববির জিম্মাদার সালমান বিন আবদুলআজিজ আল সৌদ।

বৈঠকে মন্ত্রিপরিষদের সদস্যরা রোহিঙ্গাদের নির্বিচারে হত্যা, তাদের ওপর বর্বরোচিত হামলা এবং গণহত্যার তীব্র নিন্দা জানান। তাঁরা বলেন, এ ধরনের অপরাধ ও তাণ্ডবের মাধ্যমে বহু গ্রাম ও বাড়ি ধ্বংস করে দেওয়া মুসলিম সংখ্যালঘুদের ওপর বর্বরতম ও রক্তক্ষয়ী সন্ত্রাসের নমুনা।

সময়ের কণ্ঠস্বর/রবি