রেললাইনে ২২ বছর বয়সী যুবকের করুন মৃত্যু: হেডফোন আর সেলফিই কাল হলো সাদিকুলের

সময়ের কণ্ঠস্বর: রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড রেলক্রসিং এলাকার রেল লাইন ধরে হাটছিলেন মো. সাদিকুল ইসলাম। একপর্যায়ে লাইনে উঠে পড়েন তিনি। মোবাইল ফোনে একের পর এক সেলফি তুলছিলেন। এসময় কমলাপুরগামী একটি ট্রেন ধেয়ে আসছিলো তার দিকেই। কিন্তু কানে হেডফোন লাগিয়ে তখনও গানে বিভোর তিনি। আঁচ করতে পারেননি সমুহ বিপদের। শেষতক কানের হেডফোন আর সেলফিই কাল হয় তার। ট্রেনের ধাক্কায় কয়েক ফুট দূরে ছিটকে পড়েন সাদিকুল। ঘটনাস্থলেই প্রাণ যায় আনুমানিক ২২ বছর বয়সী ওই যুবকের।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সামসুল ইসলাম জানান, শুক্রবার বিকাল সোয়া ৫টার দিকে একটি ট্রেন বিমানবন্দরের দিকে যাচ্ছিল, আরেকটি আসছিলো কমলাপুরের দিকে। এসময় স্থানীয়রা তার (সাদিকুল) উদ্দেশ্যে উচ্চস্বরে চিৎকার করে তাকে সর্তক করার চেষ্টা করেছেন, ট্রেনের চালকও অনেকবার হুইসেল দিয়েছিলেন। কিন্তু কানে হেডফোন থাকায় কিছুই শুনতে পাননি ওই যুবক। ট্রেন তার কাছে চলে আসলে তখনও তিনি রেল লাইনের উপরে দাঁড়িয়ে মোবাইলে সেলফি তোলায় ব্যস্ত ছিলেন। একপর্যায়ে কমলাপুরগামী ট্রেনের ধাক্কায় কয়েক ফুট দূরে ছিটকে পড়ে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তার। পরে তার পকেটে থাকা ড্রাইভিং লাইসেন্স দেখে পুলিশ জানতে পারে, সাদিকুল ইসলামের বাবার নাম সুরুজ মিয়া। গ্রামের বাড়ি ঢাকার নবাবগঞ্জের সমসাবাদে।

ঢাকা রেলওয়ে থানার ওসি মো. ইয়াসিন জানান, ধারণা করা হচ্ছে, অসাবধানতায় দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন সাদিকুল ইসলাম। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠানো প্রক্রিয়াধীন। তদন্ত রিপোর্ট পেলে তার মৃত্যুর বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে।