গণভোট শুরুর অপেক্ষায় কাতালানরা, পণ্ড করতে মাঠে নেমেছে পুলিশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- কেন্দ্রীয় সরকারের বিরোধিতার মুখেও স্পেন থেকে স্বাধীনতার দাবিতে গণভোটের আয়োজন করেছে দেশটির কাতালান অঞ্চলের স্থানীয় সরকার। স্থানীয় সময় আজ রোববার ভোট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

বিবিসির খবরে বলা হয়, কাতালানের স্বাধীনতার গণভোটের পক্ষে বিপক্ষে মাঠে নামতে দেখা গেছে স্পেনের বাসিন্দাদের। কেন্দ্রীয় সরকার ভোটকেন্দ্রগুলো বন্ধ করে দিতে পারে এমন আশঙ্কা করছেন কাতালানবাসীরা। এ কারণে কেন্দ্রগুলো খোলা রাখতে সেগুলো দখলে নিচ্ছেন স্বাধীনতার পক্ষের লোকজন। এর আগে ভোটের বিপক্ষে শনিবার অনেককেই বার্সেলোনায় সমাবেশ করতে দেখা যায়।

রোববার ভোটকেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হবে দুই হাজার ৩১৫টি স্কুল। এর মধ্যে এক হাজার ৩০০টি স্কুল দখলে নিয়েছে পুলিশ। ১৬৩টি স্কুল স্বাধীনতার পক্ষের লোকজনের দখলে রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এদিকে স্বাধীনতার গণভোট পণ্ড করতে মাঠে নেমেছে স্পেনের কেন্দ্রীয় সরকার। এই গণভোটকে অবৈধ বলেও ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সাংবিধানিক আদালত। কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে হাত মিলিয়ে ভোট বন্ধ করতে কাতালানে পুলিশ পাঠিয়েছে মাদ্রিদের স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি ভোটের বিপক্ষে অবস্থান নিতে কাতালানের পুলিশকেও আহ্বান জানানো হয়েছে।

স্পেনের কেন্দ্রীয় সরকারের বরাত দিয়ে রয়টার্স জানায়, কাতালানদের গণভোট থেকে বিরত রাখতে ব্যবস্থা নেবে পুলিশ। তবে কোনো প্রকার সহিংসতায় না জড়াতে পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন কাতালানের আঞ্চলিক পুলিশ প্রধান।

এদিকে যেকোনো উপায়ে ভোট চালিয়ে যেতে শুক্রবার থেকেই ভোটকেন্দ্রগুলোতে অবস্থান নিচ্ছেন কাতালানবাসী। তাদের অনেকেই রয়টার্সকে জানান, পুলিশ বলেছে রোববারের ভোটের সংশ্লিষ্টতা ছাড়া যেকোনো কাজেই তাঁরা সেখানে অবস্থান করতে পারেন।

তবে পুলিশ বলছে, কোনো ভোট অনুষ্ঠিত হবে না। ভোটের সমর্থনে কেন্দ্রে অবস্থানকারীদের বের করে দেওয়া হবে।

কাতালোনিয়ার জনসংখ্যা ৭৫ লাখ। সুইজারল্যান্ডের জনসংখ্যার সমান। স্পেনের মোট জনসংখ্যার ১৬ শতাংশ এই কাতালোনিয়ায়। স্পেনের উত্তর-পূর্বের এই প্রদেশটির রাজধানী বার্সেলোনা। তাদের আছে নিজস্ব ভাষাও। বার্সেলোনা বিশ্বের অত্যন্ত জনপ্রিয় শহরগুলোর একটি, ফুটবল এবং একই সঙ্গে পর্যটনের কারণে।

স্পেন সরকার বলছে, এই গণভোট অবৈধ। শুধু তাই নয়, আদালত থেকেও এই ভোটের আয়োজন বন্ধ করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সময়ের কণ্ঠস্বর/রবি