‘রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে মিয়ানমারের সাথে দ্বি-পাক্ষিক চুক্তি চায় বাংলাদেশ’

সময়ের কণ্ঠস্বর ~ পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী বলেছেন,রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে মিয়ানমারের সাথে দ্বি-পাক্ষিক চুক্তি চায় বাংলাদেশ। সফররত মন্ত্রীর কাছে এ ধরনের একটি চুক্তির খসড়া হস্তান্তর করা হয়েছে।

ঢাকা সফররত মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চি’র দপ্তর বিষয়ক মন্ত্রী উ কিয়া তিন্ত সোয়ে’র সাথে সোমবার (২ সেপ্টেম্বর) বৈঠক শেষে এ তথ্য জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

সাংবাদিকদের ব্রিফিংয়ে মন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার প্রস্তাব দিয়েছে মিয়ানমার।

অতীতে চাপে পড়ে সংকট সমাধানে আগ্রহ দেখানো এবং পরে আবার নিষ্ক্রিয় হয়ে যাওয়ার অভিযোগ আছে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে। সু চির মন্ত্রীর বর্তমান ঢাকা সফরও তেমন কৌশল কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা বিষয়টিকে এভাবে দেখছি না। শুরুতেই কোনো কিছুকে নাকচ করে দিলে তো আলোচনার আর কিছুই থাকে না।

পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শুরুর জন্য জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনে উভয় দেশ সম্মত হয়েছে জানিয়ে মাহমুদ আলী বলেন, শিগগিরই বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নেইপিদো সফরে যাবেন।

 

ফাইল ছবি

মন্ত্রী বলেন, আনান কমিশনের সুপারিশগুলো বাস্তবায় ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাঁচ দফা প্রস্তাব বাস্তবায়নের আহ্বানও জানানো হয়েছে মিয়ানমারকে।

আন্তর্জাতিক চাপের মধ্যে বাংলাদেশ সফর করছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চি’র দপ্তর বিষয়ক মন্ত্রী উ কিয়া তিন্ত সোয়ে। গতরাতে তিনি ঢাকায় পৌঁছেন। বৈঠক শেষে আজই তিনি ঢাকা ছাড়বেন। তবে রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে যাচ্ছেন সোয়ে।

রাখাইনে সেনাবাহিনীর দমন অভিযানের মুখে গত ২৫ অগাস্ট থেকে পাঁচ লাখের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। সেনাবাহিনী রোহিঙ্গা অধ্যুষিত গ্রামগুলোতে নির্বিচারে গুলি চালিয়ে মানুষ মারছে এবং বাড়িঘর পুড়িয়ে দিচ্ছে। মিয়ানমার সেনাবাহিনীর এই দমন অভিযানকে ‘জাতিগত নিধনের’ চেষ্টা হিসেবে চিহ্নিত করেছে জাতিসংঘ।