ফুলবাড়ীতে প্রেমের ফাঁদে ফেলে গৃহবধুকে ধর্ষন, থানায় মামলা

ফুলবাড়ী(কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি:

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক গৃহবধুকে সারা রাত ধরে ধর্ষনের ঘটনা ঘটেছে। এ ব্যাপারে ধর্ষিতা গৃহবধু নিজে বাদী হয়ে গত রোববার রাতেই ধর্ষকদের  বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ফুলবাড়ী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে।

এলাকাবাসী ও মামলা সুত্রে জানা গেছে,উপজেলার খলিশাকোটাল গ্রামের মনছুর আলীর মেয়ে গৃহবধু মুন্নী বেগম(২২) একমাস আগে  শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের বোর্ডের হাট নয়াটারী গ্রামের মহির উদ্দিনের ছেলে নাজমুলের সাথে বিয়ে হয়। গৃহবধু মন্নী বেগম গত কয়েকদিন স্বামীর বাড়ী থেকে বাবার বাড়ী খলিশাকোঠাল গ্রামে আসে। গৃহবধুর মুন্নীর সাথে র্দীঘদিন ধরে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে একই উপজেলার নওদাবশ গ্রামের মোকছেদুল হকের ছেলে এ বি আল-আমিন(২৪)এর সঙ্গে।

মুন্নী প্রেমের সম্পর্ক গোপন রেখে বাবার পছন্দের ছেলে শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের বোর্ডের হাট নয়াটারী গ্রামের মহিরের ছেলে নাজমুলের সঙ্গে বিয়ে দেয়।

এ দিকে প্রেমিকার বিয়ের কথা জানতে পেয়ে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ফুসলীয়ে আল আমিন সু-কৌশলে তার ভাতিজা  রিপন মিয়া(১৮) সহ গত শনিবার রাত সাড়ে ৮ টায় উপজেলার খলিশাকোঠাল এলাকায় গৃহবধুর বাবার ফিল্মি স্টাইলে তুলে এনে খড়িবাড়ী বাজার সংলগ্ন টিন শেড “সুর সপ্তক সংগীত একাডেমী” ঘরে এনে সারা রাত ধরে ধর্ষন করে। পরে ধর্ষিতা গৃহবধু তার প্রেমিককে বিয়ের ব্যাপারে চাপ দিলে তাকে বড়ভিটা বাজারের পাঁকা রাস্তার মাথায় রেখে পালিয়ে যান তারা। ধর্ষকের সহযোগী রিপন মিয়া নওদাবশ গ্রামের জয়নাল আবেদীনের ছেলে।

এ প্রসঙ্গে ফুলবাড়ী থানার তদন্ত কারী এস আই মহুবার রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,ধর্ষিতা গৃহবধুকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য কুড়িগ্রামের সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।