মিয়ানমারে নিযুক্ত প্রধান কর্মকর্তাকে ফিরিয়ে নিচ্ছে জাতিসংঘ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক– মিয়ানমারে জাতিসংঘ তার নিযুক্ত প্রধান কর্মকর্তা রেনাটা লক-ডেসালিয়েনকে নিউইয়র্কের সদর দপ্তরে ডেকে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে।

গতমাসে বিবিসি’র একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে অভিযোগ করা হয়, রাখাইন রাজ্যে চলমান রোহিঙ্গা সংকটের ব্যাপারে অভ্যন্তরীণ আলোচনা দমিয়ে রাখার চেষ্টা করছেন এই কর্মকর্তা। ওই অভিযোগের প্রেক্ষিতেই রেনাটা লক-ডেসালিয়েনকে ফিরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

নিউইয়র্ক যাওয়ার জন্য ডেসালিয়েনকে দু’সপ্তাহের সময় দেয়া হয়েছে। জাতিসংঘ জানায়, তিনি অক্টোবরের শেষের মধ্যেই মিয়ানমার ত্যাগ করবেন। গত জুনে অবশ্য জাতিসংঘ জানিয়েছিল, ডেসালিয়েনের পদ পরিবর্তন করে দেয়া হবে, তবে সেটার সঙ্গে তার পারফরম্যান্সের কোনো সম্পর্ক নেই।

কিন্তু ইয়াঙ্গুনে দায়িত্বরত কূটনীতিক ও ত্রাণ সহায়তা বিষয়ক সূত্রগুলো বিবিসি’কে জানায়, ডেসালিয়েন মানবাধিকারকে গুরুত্ব দিতে ব্যর্থ হওয়ায় তাকে ফিরিয়ে নেয়া হচ্ছে। এরপর থেকেই ডেসালিয়ান মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে মিলে আগের পদেই বহাল ছিলেন। এমনকি তাকে ভিন্ন পদ দিয়ে তার পদে যাকে প্রস্তাব করা হয়েছিল সেই ব্যক্তির জন্য পদ ছেড়ে দিতেও অস্বীকার করেন ডেসালিয়ান।

বিবিসি’র অনুসন্ধানে এসব তথ্য বেরিয়ে আসে। মিয়ানমারে নিযুক্ত অন্যান্য জাতিসংঘ কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন সূত্র থেকে বিবিসি অভিযোগ করে, রাখাইনের যেসব অঞ্চলে সেনাবাহিনী রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর দমন-পীড়ন চালাচ্ছিল, সেসব এলাকায় মানবাধিকার কর্মীদের যাওয়া ঠেকানোর চেষ্টাও করেছেন রেনাটা লক-ডেসালিয়েন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছিল, দু’সপ্তাহ আগেও জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্টনিও গুতেরেস বলেছিলেন, ডেসালিয়ানের ওপর পূর্ণ আস্থা আছে তার। কিন্তু এবারের ঘোষণা থেকে মনে হচ্ছে সেই আস্থার ভেতর সন্দেহ ঢুকে পড়েছে।

সময়ের কণ্ঠস্বর/রবি