বন্ধুদের নিয়ে সাবেক স্ত্রীকে ধর্ষণ!

রাজশাহী প্রতিনিধি- রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার নওয়াপাড়ায় এবার এক কলেজছাত্রীকে তুলে নিয়ে গিয়ে গণধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে তিন বখাটের বিরুদ্ধে। পুঠিয়ার বিড়ালদহ কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ওই ছাত্রীকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসেস সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে গত ২৮ সেপ্টেম্বর। তবে ঘটনার পর থেকেই বিষয়টি কাউকে না বলার জন্য তিন বখাটের পক্ষ থেকে অব্যাহতভাবে চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছিল। এমনকি কাউকে বললে স্বপরিবারে প্রাণে মেরে ফেলারও হুমকি দেওয়া হচ্ছিল। এতে প্রাণভয়ে ঘটনাটি এতদিন কাউকে জানাননি ওই ছাত্রী।

তবে শেষ পর্যন্ত ক্রমেই তার স্বাস্থ্যের অবনতি হতে থাকলে বৃহস্পতিবার তিনি পুঠিয়া থানায় গিয়ে অভিযোগ করেন। পরে তাকে চিকিৎসার জন্য রামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়।

গণধর্ষণের এ মামলার আসামিরা হলেন, উপজেলার নওয়াপাড়া গ্রামের হাসেম আলীর ছেলে শাজাহান আলী (২৪) এবং একই এলাকার আছের আলীর ছেলে ফারুক হোসেন (২৫) ও আবদুল জালিলের ছেলে শামীম হোসেন (২৩)। তাদের মধ্যে শাজাহান মেয়েটির সাবেক স্বামী।

পুলিশ জানিয়েছে, পুঠিয়ার নওয়াপাড়া এলাকার কলেজপড়ুয়া মেয়েটি ঘটনার দিন রাত ৮টার দিকে একই এলাকায় তার নানি বাড়িতে যায়। এসময় ওঁৎ পেতে থাকা মেয়েটির সাবেক স্বামী শাজাহান ও তার দুই বন্ধু ফারুক ও শামীম তাকে তুলে নিয়ে যায়; এরপর পাশের একটি পেয়ারা বাগানে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে মেয়েটিকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরে কাউকে ঘটনাটি জানালে পরিবারের সবাইকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে রাত ১১টার দিকে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়।

ভয়ে মেয়েটি এতদিন কাউকে এ ব্যাপারে কিছু জানায়নি। এরপর ক্রমেই শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকলে মেয়েটি ঘটনাটি খুলে বলে। বৃহস্পতিবার তার বাবা বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন।

পুঠিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সায়েদুর রহমান জানান, ‘মামলা দায়েরের পর মেয়েটিকে ওসিসিতে ভর্তি করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা করছে পুলিশ।’

সময়ের কণ্ঠস্বর/রবি