বৈরি আবহাওয়ায় সব নৌরুটে নৌ-চলাচল বন্ধ, সারাদিনই ঝরবে ভারী বৃষ্টি

সময়ের কণ্ঠস্বর- বৈরি আবহাওয়ার কারণে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া, মাওয়া-কাওরাকান্দিসহ দেশের অভ্যন্তরীণ সব নৌরুটে ফেরি ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)।

শনিবার সকাল সাড়ে ৮টা থেকে এ ঘোষণা দেয় কর্তৃপক্ষ। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকবে বলে জানানো হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ জানায়, নদীতে তীব্র স্রোত, ঝড়ো বাতাস ও বৈরী আবহাওয়ার কারণে দুর্ঘটনা এড়াতে ফেরি-লঞ্চ চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকে রাত পর্যন্ত স্বল্পপরিসরে কিছু ফেরি চলাচল করলেও মধ্য রাত থেকে যাত্রীদের নিরাপত্তার স্বার্থে সব ধরনের নৌযান চলাচল বন্ধ রাখা করে দেয়া হয়।

বাংলাদেশ লঞ্চ মালিক সমিতির প্রধান উপদেষ্টা গোলাম কিবরীয়া টিপু বলেন, নিন্মচাপের কারণে নদীতে অনেক বাতাস। এতে করে ছোট নৌযানগুলো যেকোনো সময় বিপদে পড়তে পারে। যার কারণে বিআইডব্লিউটিএ-এর নির্দেশে ছোট নৌযানগুলো বন্ধ রাখা হয়েছে।

আর আবহাওয়া বৈরী হওয়ায় সব রুটেই যাত্রী সংখ্যা কম। তবে উন্নতি হলে যাত্রী বাড়বে বলে মনে করেন তিনি।

এর আগে নিম্নচাপের কারণে শুক্রবার দুপুর আড়াইটার দিকে সবধরনের নৌযান চলাচল বন্ধ রাখার ঘোষণা দেয় বিআইডব্লিউটিএ। এরপর রাত সাড়ে ৮টার দিকে নৌযান চলাচলের নির্দেশ দেওয়া হয়।

তবে শনিবার সকাল থেকে ভারী বর্ষণের সঙ্গে বাতাসের কারণে ফের ছোট নৌযান ও তিনরুটে লঞ্চসহ সব ধরনের নৌযান চলাচল বন্ধ রাখার ঘোষণা দেয় কর্তৃপক্ষ।

গত বৃহস্পতিবার সকাল থেকে রাজধানীসহ সারাদেশে মুশলধারে বৃষ্টির পাশাপাশি ঝড়ো হাওয়া বইছে। ফলে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন। তবে এ পর্যন্ত কোন বড় ধরনের দুর্ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

এদিকে রাজধানীসহ সারা দেশে আজ শনিবার সারা দিনই ঝরবে ভারী বৃষ্টি। আর সিলেট ও চট্টগ্রামে বৃষ্টি অব্যাহত থাকবে রোববার ভোররাত পর্যন্ত।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, ঢাকা, বরিশাল ও খুলনা বিভাগে শনিবার সন্ধা পর্যন্ত ভারী বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আর সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগে রোববার ভোররাত পর্যন্ত টানা বৃষ্টি অব্যাহত থাকবে।

শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ৭৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। সাগর উত্তাল থাকায় শুক্রবার সমুদ্র বন্দরগুলোতে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত জারি করা হয়।

রবি