‘এ জীবনে যত বাজে ঘটনার মুখোমুখি হয়েছি তার মধ্যে এটি সবচেয়ে ভয়ানক’

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক: ক্যারিবিয়ান ব্যাটিং দানব ক্রিস গেইল তার মারকাটারি ব্যাটিংয়ের জন্য যতটা বিখ্যাত ততটাই দুর্নামের শিকার হয়েছেন বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কাণ্ড ঘটিয়ে। গত বছর অস্ট্রেলিয়ার বিগব্যাশে খেলতে গিয়েও একজন নারী টেলিভিশন উপস্থাপকের সঙ্গে অপ্রীতিকর আলাপচারিতায় জড়িয়ে পড়েছিলেন তিনি। তবে এবারের অভিযোগ আরো গুরুতর, একজন নারী ম্যাসাজ থেরাপিস্টের সঙ্গে তোয়ালে খুলে অসভ্যতা করেছেন তিনি।

ঘটনাটি দুই বছর আগের ২০১৫ বিশ্বকাপের সময়কার। বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে উঠে এসেছে গেইলের এই অশ্লীল কীর্তি। বিশ্বকাপের সময় সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডের ড্রেসিংরুমে তিনি নাকি একজন নারী ম্যাসাজ থেরাপিস্টের সামনে তোয়ালে খুলে ফেলেছিলেন। এরপর নিজের যৌনাঙ্গ প্রদর্শন করেছিলেন সেই নারীকে। এই ঘটনাটি নিয়ে গত দুই বছর ধরে ধারাবাহিক রিপোর্ট করে যাচ্ছিল অস্ট্রেলিয়ার কয়েকটি সংবাদপত্র। তাহলে এতদিন পর এই ঘটনা আলোচনায় আসল কেন?

সম্প্রতি ঘটনাটি নিয়ে অজি মিডিয়ার প্রতিবেদনে ধৈর্যর বাঁধ ভেঙেছে এতদিন চুপ করে থাকা গেইল। তিনি দাবি করেছেন, এ ধরনের কোনো ব্যাপার ঘটেনি। তার সুনাম নষ্ট করার জন্যই অজি মিডিয়া এসব নিউজ করছে। এই অভিযোগ থেকে নিজেকে মুক্ত করার জন্য গেইল নিউসাউথ ওয়েলসের একটি আদালতে মানহানির মামলা দায়ের করেছেন।

মিডিয়ার কাছে গেইল বলেছেন, আমি এ জীবনে যত বাজে ঘটনার মুখোমুখি হয়েছি তার মধ্যে এটি সবচেয়ে ভয়ানক। তবে এই মিথ্যা অভিযোগ থেকে নিজেকে মুক্ত করতে আমি দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।

রবিবার গেইলের মামলার শুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। আর সেখান থেকেই বিষয়টি বিশ্ব মিডিয়ায় নতুন করে স্থান করে নিয়েছে। শুনানিতে গেইলের আইনজীবি বলেছেন, তার মক্কেলের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে সেগুলো পুরোপুরি মিথ্যা। এর মাধ্যমে তারা গেইলকে অসম্মান করেছে। অস্ট্রেলিয়ার ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়া গ্রুপের কয়েকটি সংবাদপত্রের রিপোর্ট গেইলের মানহানি ঘটিয়েছে।

তবে ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়া গ্রুপ বলেছে, তার পর্যাপ্ত তথ্য-প্রমাণ হাতে নিয়েই বিষয়টি সম্পর্কে ধারাবাহিক প্রতিবেদন করেছে। এখন দেখার বিষয়, গেইল নিজেকে এই ভয়ানক অভিযোগ থেকে মুক্ত করতে পারেন কিনা।