কাজ নেই কষ্টে আছে, ঠাকুরগাঁওয়ের ১লাখ দিন মজুর

কামরুল হাসান, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি:

পরিবার-পরিজন নিয়ে চরম কষ্টে দিন কাটাচেছ ঠাকুরগাঁওয়ের প্রায় এক লাখ দিন মজুর ।কাজের খোঁজে হন্য হয়ে ঘুরছে উপজেলা শহর থেকে জেলা শহরে । অনেকে এলাকা ছেড়ে ঢাকাসহ বিভাগীয় শহরে পাড়ি দিচেছ কাজের সন্ধানে ।

রোববার সদর উপজেলার চন্ডিপুর গ্রামের ললিত রায়(৪৫) শহরের পুরাতন বাসস্ট্যানে কাজের খোঁজে এসেছিলেন । কিন্তু কাজ জোটেনি । পরে নিরাশ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ওই দিন মজুর ।তিনি বলেন বাপু হামরা (আমরা) খুব কষ্টে আছি । একই সুরে বলেন সালন্দর গ্রামের ফয়মতউদ্দিন।এই দিন মজুর জানায় স্ত্রীসহ ৫ সন্তানের সংসারের ঘানি টানা এবার কষ্ট হয়ে দাঁড়িয়েছে ।তিনি দু:খ করে বলেন গরিব মানেই বঞ্চনা ।

হরিপুর উপজেলার গেদুরা গ্রামের দবিরউদ্দিন বলেন গতবার এ সময় কাজ ছিল এবার কাজের অভাব । তিনি আক্ষেপ করে বলেন সাহেবদের দিন হামার চিরকাল আন্ধার ।শেষে বলেন অভাব তার উপর জিনিস পত্রের দাম বাড়ছে এভাবে কী করে বাচাঁ যায় ! তাছাড়া এনজিও’র কিস্তিতো আছেই ।

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা মানব কল্যান পরিষদের এক জরিপে এ তথ্য জানা গেছে ।এ সংস্থার পরিচালক রবিউল আযম বলেন, ঠাকুরগাঁর ৫ উপজেলার ১ হাজার ১৬ টি গ্রামের কৃষি শ্রমিক ও দিন মজুরদের হাতে এবার এ সময়ে কাজ না থাকায় মানবেতর দিন যাপন করছে এ জেলার প্রায় ১লাখ শ্রমজীবি মানুষ ।

সংস্থাটি জানিয়েছে গত বছর এসময় সরকারের কর্মসৃজন প্রকল্প চালু থাকায় শ্রমিকরা কাজ পেয়েছিল । কিন্তু এবার এধরনের কোন কর্মসুচি না থাকায় কাজের অভাব দেখা দিয়েছে । এছাড়া এবার বৈরি আবহাওয়া দরুন আগাম ধান কাটা, আলু আবাদ,আখচাষ ব্যবহত হওয়ায় কৃষি কাজের সংকট দেখা দিয়েছে । গৃস্থালির কাজ ও নেই এসময় ।তারপরন্তু চাল-ডালসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমুল্যের দর উর্ধমুখি ।

এ প্রসঙ্গে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ত্রাণ ও পুর্ণবাসন (পিআইও ) কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়া বলেন এ সময় ৪০ দিনের কর্মসূচী বাস্তবায়ন করা হয়। কিন্তু এখনও পযর্ন্ত এ কর্মসূচী আসেনি, আসলেই তা বাস্তবায়ন করা হবে।

শ্রমজীবিদের কর্মসংস্থান ও পুর্ণবাসন বিষয়ে ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল বলেন বিষয়টি দেখবেন জানান তিনি।