নুহাশপল্লীতে হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন উদযাপন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, গাজীপুর- বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে গাজীপুরের নুহাশপল্লীতে উদযাপিত হচ্ছে প্রয়াত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের ৬৯ তম জন্মদিন।

এ উপলক্ষে নুহাশপল্লীতে কেক কাটা, মোমবাতি প্রজ্জ্বলনসহ নেওয়া হয়েছে নানা কর্মসূচি। তার স্মৃতি আর ব্যবহৃত জিনিসপত্র সংরক্ষণে নুহাশপল্লীতে জাদুঘর নির্মাণের কথা বলছেন হুমায়ুন আহমেদের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন।

শীতের কুয়াশা মাড়িয়ে সোমবার সকাল থেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসেন হুমায়ূন ভক্তরা। আস্তে আস্তে নুহাশপল্লী হুমায়ূন ভক্তদের পদচারণায় ভরে যায়। কেউ সাইকেলে আবার কেউ বাসে চড়ে আসেন। হলুদ পাঞ্জাবি পড়া হিমু পরিবারের সদস্যরাও এসেছেন। কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন সাংবাদিক, লেখক, সাহিত্যিকসহ নানা শ্রেণিপেশার মানুষ। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন তারা।

স্বামীর জন্মদিন পালনের জন্য মেহের আফরোজ শাওন তার দুই পুত্র সন্তান নিষাদ ও নিনিতকে সঙ্গে নিয়ে নুহাশপল্লীতে আসেন। বেলা ১১টার দিকে তিনি হুমায়ুন আহমেদের কবরে ফুল দেন।

মরহুমের পরিবার পরিজনের পাশাপশি ভক্তদের অনেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসেন সকাল থেকেই। সাইকেলযোগে নুহাশপল্লীতে এসে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন গাজীপুরের হিমু পরিবারের ৩০ সদস্য। এছাড়া নুহাশপল্লীর কর্মকর্তা, কর্মচারীরাও কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

এ সময় হুমায়ূন আহমেদের লেখা ও বই বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদের দাবি জানান তার অনেক ভক্ত। লেখকের প্রতি ভালোলাগা ও ভালোবাসার প্রেরণা থেকে তারা এখানে এসেছেন বলে জানান।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে হুমায়ূন আহমেদের বাস ভবনের সামনে তার ৬৯তম জম্মদিনের কেক কাটা হয়।

রবি