‘আ.লীগ ক্ষমতা হারালে রাজনৈতিক অঙ্গনে ফিরতে বহু বছর লেগে যাবে’

সময়ের কণ্ঠস্বর: বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, ‘যদি জোর করে আপনারা ক্ষমতায় থাকতে চান কিংবা আবারও ক্ষমতায় আসেন; তারপর যদি বিদায় নিতে হয়, সে ক্ষেত্রে রাজনৈতিক অঙ্গনে ফিরতে অনেক সময় লেগে যাবে। এর আগেও এ ধরনের কাজ করে আপনারা বহু বছর রাজনৈতিক অঙ্গনের বাইরে ছিলেন। আমরা চাই না আপনারা রাজনীতির বাইরে থাকুন।’

সোমবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত গোলটেবিল আলোচনায় তিনি এ কথা বলেন।

৭ নভেম্বর বিএনপির বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন পরিষদের উদ্যোগে ‘৭ নভেম্বরের চেতনা এবং বাংলাদেশের বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক এ গোলটেবিল আলোচনার আয়োজন করা হয়।

আমীর খসরু ব‌লেন, ‘গণতন্ত্রের পথে ফিরে এসে আপনারা (সরকার) নিরপেক্ষ নির্বাচন দিন। সেই নির্বাচনে কে জয়ী বা পরাজিত হলো তা বড় বিষয় নয়, আমরা চাই দেশে গণতন্ত্র ফিরে আসুক। গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ফিরতে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের বিকল্প নেই।’

বিএনপির নেতা আরো বলেন, জনগণের প্রত্যাশা কী, তা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের জনসভায় প্রকাশ পেয়েছে। তিনি বলেন, ‘দেশে আজ গণতন্ত্র নাই, গণতন্ত্র প্রশ্নবিদ্ধ। এখন জনগণের প্রত্যাশা একটাই, গণতন্ত্রে ফিরে পাওয়া। আর এই প্রত্যাশা ফিরে পাওয়ার নেতৃত্ব দিচ্ছেন খালেদা জিয়া।’

আমীর খসরু বলেন, বিএনপির জনসভায় আসতে মানুষকে বাধা দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ‘সরকার কেন বাধা দেয় তা আমার বোধগম্য নয়। কিন্ত এসব বাধা কি সব সময় কাজ করে? জোয়ার এলে কোনো বাধাই বাঁধ মানে না। কালকের (রোববার) জনসভায় এসে জনগণ প্রমাণ করেছে- তাদের দমিয়ে রাখা যাবে না।’ এ সময় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি মেনে নেওয়ার আহ্বান জানান আমীর খসরু।

সভায় অন্যদের ম‌ধ্যে উপ‌স্থিত ছি‌লেন আয়োজক সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ রবিউল ইসলাম র‌বি, বিএনপির প্রশিক্ষণবিষয়ক সম্পাদক এ বি এম মোশাররফ হোসেন, জাগপার সাধারণ সম্পাদক খোন্দকার লুৎফর রহমান।বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, ‘যদি জোর করে আপনারা ক্ষমতায় থাকতে চান কিংবা আবারও ক্ষমতায় আসেন; তারপর যদি বিদায় নিতে হয়, সে ক্ষেত্রে রাজনৈতিক অঙ্গনে ফিরতে অনেক সময় লেগে যাবে। এর আগেও এ ধরনের কাজ করে আপনারা বহু বছর রাজনৈতিক অঙ্গনের বাইরে ছিলেন। আমরা চাই না আপনারা রাজনীতির বাইরে থাকুন।’

সোমবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত গোলটেবিল আলোচনায় তিনি এ কথা বলেন।

৭ নভেম্বর বিএনপির বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন পরিষদের উদ্যোগে ‘৭ নভেম্বরের চেতনা এবং বাংলাদেশের বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক এ গোলটেবিল আলোচনার আয়োজন করা হয়।

আমীর খসরু ব‌লেন, ‘গণতন্ত্রের পথে ফিরে এসে আপনারা (সরকার) নিরপেক্ষ নির্বাচন দিন। সেই নির্বাচনে কে জয়ী বা পরাজিত হলো তা বড় বিষয় নয়, আমরা চাই দেশে গণতন্ত্র ফিরে আসুক। গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ফিরতে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের বিকল্প নেই।’

বিএনপির নেতা আরো বলেন, জনগণের প্রত্যাশা কী, তা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের জনসভায় প্রকাশ পেয়েছে। তিনি বলেন, ‘দেশে আজ গণতন্ত্র নাই, গণতন্ত্র প্রশ্নবিদ্ধ। এখন জনগণের প্রত্যাশা একটাই, গণতন্ত্রে ফিরে পাওয়া। আর এই প্রত্যাশা ফিরে পাওয়ার নেতৃত্ব দিচ্ছেন খালেদা জিয়া।’

আমীর খসরু বলেন, বিএনপির জনসভায় আসতে মানুষকে বাধা দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ‘সরকার কেন বাধা দেয় তা আমার বোধগম্য নয়। কিন্ত এসব বাধা কি সব সময় কাজ করে? জোয়ার এলে কোনো বাধাই বাঁধ মানে না। কালকের (রোববার) জনসভায় এসে জনগণ প্রমাণ করেছে- তাদের দমিয়ে রাখা যাবে না।’ এ সময় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি মেনে নেওয়ার আহ্বান জানান আমীর খসরু।

সভায় অন্যদের ম‌ধ্যে উপ‌স্থিত ছি‌লেন আয়োজক সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ রবিউল ইসলাম র‌বি, বিএনপির প্রশিক্ষণবিষয়ক সম্পাদক এ বি এম মোশাররফ হোসেন, জাগপার সাধারণ সম্পাদক খোন্দকার লুৎফর রহমান।