নোয়াখালী সোনাইমুড়ি থেকে তুলে নেয়ার পর মুক্তিপণে ছাড়া পেল ব্যবসায়ী

মোঃ ইমাম উদ্দিন (সুমন), নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে তুলে নেয়ার পর মুক্তিপণ দিয়ে ছাড়া পেয়েছে এক ব্যবসায়ী। মাসুদুর রহমান নামের ওই ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে যাওয়ার ১২ ঘণ্টা পর গতকাল সোমবার দুপুরে সদরের সোনাপুর জিরোপয়েন্ট এলাকায় ছাড়া হয়। তার কাছ থেকে দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায় করা হয়। অপহরণের পর পরই সংশ্লিষ্ট থানা ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ঘটনাটি জানালেও পুলিশ কোনো সহযোগিতা করেনি বলে অভিযোগ করেছে তার পরিবার।

অপহৃতার আত্মীয় মিজানুর রহমান জানান, রোববার রাতে আমিশাপাড়া ইউনিয়নের আলী আকবরের ছেলে মাসুদুর রহমানকে নিজ বাড়ি থেকে ৭/৮ জনের একদল লোক পুলিশ পরিচয় দিয়ে জোর করে একটি সাদা মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়। পরে রাতেই গাড়ির ভিতরে তাকে বিভিন্নস্থানে ঘুরিয়ে বেদম মারধর করে।

এই সময়ে অপহরণকারীরা মাসুদুর রহমানের মোবাইল দিয়ে প্রথমে তাকে রাতেই মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে তার আত্মীয়স্বজনের নিকট ফোন করে। এরপর তাকে ছেড়ে দেয়ার শর্তে সোমবার সকালে দুষ্কৃতকারীরা আবারো ২ লাখ টাকা নিয়ে বেগমগঞ্জ চৌরাস্তায় আসতে বলে। এর পর পরই তারা অবস্থান পরিবর্তন করে চৌমুহনী-মাইজদী সড়কের পাশে বাংলাদেশ টেলিভিশনের সামনে ও পরে মাইজদীর সোনাপুরের জিরো পয়েন্টের কাছে মান্নান নগর চৌরাস্তায় টাকা নিয়ে আসতে বলে।

তারা নিরুপায় হয়ে অপহরণকারীদের হাতে নগদ ২ লাখ টাকা তুলে দিয়ে মাসুদুর রহমানকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। মুক্ত হওয়ার খবর পেয়ে পুলিশ তাকে থানায় নিয়ে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে। সোনাইমুড়ি থানার অফিসার ইন-চার্জ ইসমাইল মিয়া জানান, মাসুদুর রহমানকে উদ্ধার করে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে। কারা অপহরণ করেছে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে ভিকটিমের অভিযোগের ভিত্তিতে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে।