মাদারীপুর পুরুষ শুন্য এলাকায় ঘরবাড়ী ভাংচুর ও লুটপাট, শিশুসহ আহত ২

স্টাফ রিপোর্টার, মাদারীপুর- মাদারীপুর সদর উপজেলার পূর্বরাস্তি এলাকায় ইটভাটার জমির টাকা নিয়ে পূর্বশত্রুতার জেরে মঙ্গলবার রাতের আধারে পুরুষশুন্য এলাকায় ৪টি বাড়িতে হামলা চালিয়ে প্রায় ১০-১১টি ঘর ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে।

এতে এক শিশুসহ ২জন আহত হয়েছে। তাছাড়া স্বর্ণ অলংকার ও নগদ টাকাসহ প্রায় ১২ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবী করেছেন ভূক্তভোগীরা। তবে এ ব্যাপারে এখনো কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। আর যার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে সে এই ব্যাপারটি অস্বীকার করেছেন।

পুুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, ফসলী জমি জোর করে মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছিলো ইটভাটার মালিক ছোবাহান ফকির, মাটি কাটা বাধা দিলে সালিশ বসলে সেখানে ছোট খাটো কথা কাটাকাটি হয়। ঐদিনই তাদের নামে মামলা দিয়ে হয়রানি করে আসছে। মামলার ভয়ে বাড়ীতে পুরুষ লোক না থাকায়, মঙ্গলবার গভির রাতে ছোবাহান ফকির (ইটভাটার মালিক) ও খবির খার নেত্রিত্বে একশ থেকে দেড়শত সন্ত্রাসী লোক রামদা, কুরাল, স্যানদা ও দেশিয় বিভিন্ন অস্ত্র নিয়ে নান্নু বেপারীর, শাহিন বেপারীর, আম্বিয়া খাতুন সহ এলাকার ১১টি ঘরে হামলা চালিয়ে ঘরের দরজা ভেঙ্গে ভাংচুর চালায় এবং একজনকে পুরুষ ভেবে ঘুমানো অবস্থায় রামদা দিয়ে এলোপাতারী পিটাতে থাকে যখন বুজতে পারে সে মহিলা তখন ঘরের মধ্যে লুটপাট সহ ভাংচুর করে চলে যায়।

পরে পুলিশ এসে এলাকার পরিস্থিতি শান্ত করে। আর এই ঘটনায় এক শিশু ও এক মহিলা আহত হয়েছে বলে জানা যায়। তাছাড়া প্রায় ১২ লক্ষটাকার ক্ষতি হয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে করেছে ক্ষতিগ্রস্থরা।

নান্নু বেপারীর স্ত্রী নাজমা বেগম, শাহিন বেপারীর স্ত্রী কামরুন্নাহার, আম্বিয়া খাতুন বলেন আমাদের বিভিন্ন ঘর থেকে নগদ টাকা ও স্বর্ণ অলংকর সহ ১২/১২ লাখ টাকার মালা মাল লুট করে নিয়ে গেছে ঐ সন্ত্রসীরা।

মাতুব্বর জানান, যারা এই লুটপাট ও ভাংচুর জঘন্য ন্যাক্কর জনক ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের দৃস্টান্ত মুলক শাস্তি দাবি করছি।

হামলা ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনার ব্যাপারে ছোবাহান ফকির (ইটভাটার মালিক) সাক্ষাতে পাওয়া না গেলে মোবাইলে জানান, আমি দুইদিন আগে ঢাকায় এসেছি, আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। তবে আমি তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছি তাই কাউন্টার মামলা দেওয়ার জন্য এই হামলার ঘটনা ঘটানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে মাদারীপুর জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও বিশেষ শাখা) উত্তম প্রসাধ পাঠক জানান, গত রাতে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা শুনে তাৎক্ষনিক পুলিশ ফোর্স পাঠিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা হয়েছে। এ ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের আটক করার অভিযান চলছে। তবে আমরা প্রাথমিক ভাবে ধারনা করছি, হাবি বেপারী ও ছোবাহান মিয়া ইট ভাটার জমির টাকা সংক্রান্ত পূর্বে মারামারি ও ভাংচুরের কারনে এই ঘটনা ঘটেছে।

উল্লেখ্য, গত (১৪-১১-১৭) মঙ্গলবার সন্ধার পরে ইট ভাটার মালিক ছোবাহান মিয়ার মের্সাস জে এস এন্টার প্রাইজ এর অফিস কক্ষে মিমাংশার জন্য ছোবাহান মিয়া ও হাবি বেপারী শালিসিতে কথা কাটাকাটির মধ্য দিয়েই ছোবাহান মিয়ার লোকজন ও টুকু মোল্লার লোকজন উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে এবং ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে।

এতে এক মহিলাসহ ২ জন আহত হয়। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয় এবং ঐদিনই ১৯জনকে আসামী করে একটি মামলা করা হয়।

সময়ের কণ্ঠস্বর/রবি