থ্রিলার সিনেমাকেও হার মানিয়েছে যে ভিডিও

চিত্র বিচিত্র ডেস্ক- উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার সীমান্তবর্তী পানমুনজম গ্রামের দিকে ফাঁকা রাস্তা দিয়ে দ্রুত গতিতে ধেয়ে আসছে একটি জিপ। দু’দেশের কাঁটাতারের মাঝে সংরক্ষিত এলাকায় গিয়ে জিপটির চাকা খুলে যায়। ফলে সেটি থেমে যায়। এরপর ওই জিপ থেকে বেরিয়ে দ্রুত দৌড়াতে থাকেন এক সেনাসদস্য।

এ সময় উত্তর কোরিয়ার সশস্ত্র সেনাসদস্যরা তার পিছু নেয়। তারা ঝড়ের বেগে গুলি করতে থাকে। এক পর্যায়ে গুরুতর জখম ওই সেনাসদস্যকে উদ্ধারে বুকে হেঁটে এগিয়ে আসতে দেখা যায় দক্ষিণ কোরিয়ার সেনাসদস্যদের।

এটি কোনো সিনেমার দৃশ্য নয়। কয়েক দিন আগে উত্তর কোরিয়া থেকে পালাতে গিয়ে মারাত্মকভাবে জখম হন দেশটির এক সেনাসদস্য। বুধবার নাটকীয় ওই ঘটনার ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করে আমেরিকার নেতৃত্বাধীন বাহিনী ইউনাইটেড নেশনস কম্যান্ড (ইউএনসি)। ওই ভিডিও ফুটেজের দৃশ্যই বর্ণনা করছিলাম এতোক্ষণ।

ভিডিওতে আরও দেখা গেছে, ওই সেনাসদস্যের পিছু নিয়ে উত্তর কোরিয়ার এক রক্ষী কয়েক সেকেন্ডের জন্য দু’দেশের সীমান্তে চিহ্নিত বেসামরিক ক্ষেত্রে (ডিমিলিটারাইজড জোন) ঢুকে পড়েন। এরপর মুহূর্তের মধ্যে ফিরেও যান তিনি। কিন্তু এ থেকে তৈরি হয়েছে অন্য বিতর্ক। ওই রক্ষী বিতর্কিত এলাকায় ঢুকে ১৯৫৩ সালে কোরীয় যুদ্ধ শেষে করা সংঘর্ষবিরতির চুক্তি ভঙ্গ করেছেন বলে দাবি ইউএনসি’র। এ চুক্তি দেখভালের দায়িত্ব ইউএনসি’র ওপর ন্যাস্ত আছে।

উত্তর কোরিয়ার ২৪ বছর বয়সী পলাতক ওই সেনাসদস্য আপাতত দক্ষিণ কোরিয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। জ্ঞান ফিরেছে তার। তিনি এখন দক্ষিণ কোরিয় ও পশ্চিমী সংগীত শুনে ও টিভি দেখে সময় কাটাচ্ছেন। তবে তার পদমর্যাদা প্রকাশ করা হয়নি।

পানমুনজম গ্রামের গত ১৩ নভেম্বরের ওই ঘটনায় ওই সেনা সদস্যের গায়ে অন্তত চারটি গুলি লাগে। যে চিকিৎসক তার অস্ত্রোপচার করেছেন তিনি বলেছেন, মানসিক চাপের কারণে তার মধ্যে কিছুটা হতাশা রয়েছে। সঙ্গে যোগ হয়েছে অস্ত্রোপচারের ধকল। আতংকের কারণে পরে তার মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলার আশঙ্কা তৈরি হতে পারে। তাই আরও শারীরিক পরীক্ষা করা হবে তার।

ওই সেনা সদস্যের দাবি, তিনি স্বেচ্ছায় সীমান্ত পেরোতে গিয়েছিলেন। ঝাঁকে ঝাঁকে গুলির মধ্যে মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে তার সীমান্ত পেরোনোর উদ্দেশ্য ছিল— ভালভাবে বাঁচা। কারণ দক্ষিণ কোরিয়া সম্পর্কে তার ইতিবাচক ধারণা ছিল। চিকিৎসকদের পরামর্শ মেনে কিছু দিনের মধ্যেই তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে তদন্তকারী দল।

এখানে দেখুন ভিডিও-

সময়ের কণ্ঠস্বর/রবি