তাজরীন ফ্যাশনসে শ্রমিক হত্যার বিচার ৫ বছরেও হলো না কেন গোলাম মোস্তফা ভুইয়া

তাজরীন ফ্যাশনসে আগুনে পুড়ে শ্রমিক হত্যার ৫ বছর হয়েছে। শ্রমিকরা কি পেল? প্রশ্ন রেখে বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেছেন, তাজরীনের মর্মান্তিক ঘটনার পর গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্টে বলা হয়েছে মালিক পক্ষের অবহেলাজনিত কারণে এত ব্যাপক সংখ্যক শ্রমিক হতাহত হয়েছেন। ৫ বছর হয়ে গেলো এখনো খুনী মালিক দেলোয়ারসহ সংশ্লিষ্ট অপরাধীদের কোন বিচার হয়নি।

শুক্রবার নয়াপল্টনস্থ যাদু মিয়া মিলনায়তনে “তাজরীন ফ্যাশনসে আগুনে পুড়ে শ্রমিক হত্যার ৫ বছর” উপলক্ষে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ ঢাকা মহানগর আয়োজিত স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, খুনী দেলোয়ার জামিনে মুক্ত হয়ে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। সরকারের কুচপরোয়া নেই। আমরা দেখছি শুনানীরি দিন পুলিশ সাক্ষীদের আদালতে হাজির করছে না। পুলিশ নিশ্চিন্তপুরে গিয়ে সাক্ষীদের ভয়ভীতি প্রদান করে আদালতে হাজির হতে বাধা প্রদান করছেন। আইনের লোক হয়ে এরকম বেআইনী কাজ করার অপরাধে আমরা সংশ্লিষ্ট পুলিশের বিচার দাবি করছি।

তিনি আরো বলেন, অবস্থাদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে আগুনে পুড়ে শ্রমিক হত্যার মতো ঘটনা ঘটার পরও খুনী মালিক ও তার সাঙ্গ-পাঙ্গদের যথাযথ বিচার করার বদলে এদেরকে বিচারের হাত থেকে রক্ষা করা রজন্য রাষ্ট্রপক্ষ তৎপরতা চালাচ্ছে। খুনী মালিক দেলোয়ারকে রক্ষা করার জন্য দৃশ্যমান এই রাষ্ট্রীয় তৎপরতার বিরুদ্ধে আমরা আজকের এই সংবাদ সম্মেলন থেকে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আমরা দাবি জানাচ্ছি অবিলম্বে খুনী মালিকের জামিন বাতিল করে তাকে গ্রেফতার ও বিচার করা হোক।

তিনি বলেন, হৃদয় বিদারক এই ঘটনার ৫ বছর হলো এখনো নিহত আহত শ্রমিকরা কাঙ্খিত ক্ষতিপূরণ পাননি। শ্রমিকদের স্বজনরা কেমন আছেন, কিভাবে পরিবারগুলো চলছে এ বিষয়ে যেন কারো কোন দায়িত্ব নেই। না সরকারের না মালিক পক্ষের। দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখছেন যে শ্রমিকরা তাদের প্রতি সরকার ও মালিকপক্ষের এই অবহেলা খুবই দুঃখজনক।

নগর সদস্য সচিব মো. শহীদুননবী ডাবলু’র সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশগ্রহন করেন ন্যাপ ভাইস চেয়ারম্যান কাজী ফারুক হোসেন, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ শাহজাহান সাজু, স্বপন কুমার সাহা, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. কামাল ভুইয়া, সাহিত্য-সাংস্কৃতিক সম্পাদক মতিয়ারা চৌধুরী মিনু, নগর যুগ্ম আহ্বায়ক আনছার রহমান শিকদার, অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম, যবিনেতা আবদুল্লাহ আল কাউছারী, ছাত্রনেতা সোলায়মান সোহেল প্রমুখ।