নরসিংদীতে বঙ্গবন্ধু মেধাবৃত্তি নিয়ে বিভ্রান্তমূলক তথ্য ছড়ানোর অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা: নরসিংদীতে বঙ্গবন্ধু মেধাবৃত্তি নিয়ে বিভ্রান্তমূলক তথ্য ছড়ানোর অভিযোগ উঠেছে। ২০০৫ সাল থেকে ধারাবাহিকভাবে ঢাকা, চট্রগ্রাম, সিলেট নরসিংদী ও কক্সবাজারে এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। গত বছর নরসিংদী জেলায় বঙ্গবন্ধু মেধাবৃত্তি পরীক্ষায় ১৬৯৬ পরীক্ষার্থী অংশগ্রহন করেন। ২২ নভেম্বর জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি অবহিতকরন অভিযোগপত্র দায়ের করে বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ফাউন্ডেশন।

গতবছর নরসিংদী ব্রাহ্মন্দী সরকারি কে.কে.এম উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ প্রাঙ্গনে বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে মেধাবৃত্তি পুরস্কার বিতরন করেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নজরুল ইসলাম হিরু এমপি ও নরসিংদী-৩ আসনের সংসদ সদস্য সিরাজুল ইসলাম মোল্লাসহ বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তারা

বঙ্গবন্ধু মেধা ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী সাজ্জাদ হোসেন জানায়, ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ফাউন্ডেশন ২০০৫ সাল থেকে ধারাবাহিকভাবে বিভাগীয় ও জেলা শহরে এই মেধাবৃত্তির আয়োজন করে আসছে। গতবছর নরসিংদী জেলায় বঙ্গবন্ধু মেধাবৃত্তি পরীক্সায় ১ হাজার ৬৯৬ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়, যেখানে সাফল্যের স্বাক্ষর রেখেছে ৮৪৯ জন শিক্ষার্থী। ২৬ মে তাদের প্রত্যেককে পুরস্বার প্রদান করেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নজরুল ইসলাম হিরু এমপি ও নরসিংদী-৩ আসনের সংসদ সদস্য সিরাজুল ইসলাম মোল্লা। আমাদের দেশব্যাপি এই অনুষ্ঠানের প্রসার দেখে নরসিংদীতে কিছু স্বার্থন্বেষী লোক বঙ্গবন্ধু মেধা ফাউন্ডেশন নিয়ে বিভ্রান্তমূলক তথ্য ছড়াচ্ছে। আমাদের বঙ্গবন্ধু মেধাবৃত্তির নরসিংদী জেলার কর্মকর্তাদেরকে বিভিন্নভাবে হুমকি প্রদান করা হচ্ছে।’

নরসিংদী বঙ্গবন্ধু মেধাবৃত্তির কর্মকর্তারা বলেন, ‘গত বছর নরসিংদী জেলায় বঙ্গবন্ধু মেধাবৃত্তির দ্বায়িত্ব পায় শান্তা নামের একটি মেয়ে। সংগঠন বিরোধী কাজে জড়িত হওয়ায় শান্তাকে বাদ দিয়ে এবছর আমাকে দ্বায়িত্ব দেয়া হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করেই মূলত বিভ্রান্তমূলক তথ্য ছড়ানো হচ্ছে। শান্তা আমাকে ও আমার সহকর্মীদেরকেও বিভিন্নভাবে বিভিন্নমাধ্যমে হুমকি প্রদান করে আসছে। নরসিংদীতে বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ফাউন্ডেশনের নাম খারাপ করছে। আমি এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।’