জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিচ্ছে ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক– জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প একতরফাভাবে স্বীকৃতি দিতে যাচ্ছেন বলে দেশটির এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন। আজ বুধবারই ট্রাম্পের এ বিষয়ে বক্তব্য দেওয়ার কথা রয়েছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওই কর্মকর্তার বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, তবে এখনই যুক্তরাষ্ট্র নিজেদের দূতাবাস তেল আবিব থেকে জেরুজালেমে সরিয়ে নেবে না। ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্তে মধ্যপ্রাচ্যের পরিস্থিতি আরো ঘোলাটে হয়ে উঠবে বলে আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা।

জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিলে এর পরিণতি ‘ভয়াবহ’ হতে পারে বলে যুক্তরাষ্ট্রকে হুঁশিয়ার করেছে জর্দান। যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেওয়া ন্যায়সম্মত হবে না বলে মনে করছে আরব লীগ।

এমন হলে রুদ্ধ হয়ে যেতে পারে দ্বিরাষ্ট্রীয় সমাধানের পথ। নতুন করে সংঘাতে জড়িয়ে পড়তে পারে ফিলিস্তিন ও ইসরায়েল। এরই মধ্যে ফিলিস্তিন মুক্তি আন্দোলনের সশস্ত্র সংগঠন হামাস ইসরায়েলের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ যুদ্ধের হুমকি দিয়েছে।

এদিকে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক পত্রিকা মিডল ইস্ট আই জানিয়েছে, ফাঁস হওয়া ট্রাম্পের মধ্যপ্রাচ্যের শান্তি পরিকল্পনায় ফিলিস্তিনের নিরাপত্তার ভার ইসরায়েলের ওপর দেওয়া হয়েছে। ফলে আশঙ্কা করা হচ্ছে, ফিলিস্তিনের সার্বভৌমত্ব বলে কিছু থাকবে না।

সোমবার ভোরের দিকে জর্দানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আয়মান সাফাদি এক টুইটে জানান, ইসলায়েল-ফিলিস্তিন শান্তি প্রচেষ্টাকে মারাত্মক ঝুঁকিতে ফেলবে এ সিদ্ধান্ত।

আগের দিন আবর বিশ্বের শীর্ষ সংগঠন আরব লীগের প্রধান আহমেদ আবুল গেইত উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। কায়রোয় এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, এটি খুবই দুর্ভাগ্যজনক যে, মধ্যপ্রাচ্য ও পুরো বিশ্বের স্থিতিশীলতায় ধসে পড়তে পারে- এ কথা বিবেচনায় না নিয়ে কেউ কেউ জোর করে এ ধরনের পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছেন।

আবুল গেইত আরও বলেন, এ ইস্যুর ওপর নিবিড় পর্যবেক্ষণ করছে আরব এবং ট্রাম্প যদি এ ধরনের ঘোষণা দিয়েই ফেলেন, তখন অবস্থান কী হবে সে বিষয়ে সমন্বয়ের জন্য আরব ফিলিস্তিন ও আরব রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে আরব লীগ।

সময়ের কণ্ঠস্বর/রবি