প্রেমিক রেখে ব্যথিত হৃদয়ে দেশে ফিরে যাচ্ছেন ইন্দোনেশীয় তরুণী, নেপথ্যে যে কারণ!

পটুয়াখালী প্রতিনিধি, সময়ের কণ্ঠস্বর- সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পরিচয়। সেই সূত্র বন্ধুত্ব, প্রেম। এরপর সেই প্রেমের টানেই ইন্দোনেশিয়া থেকে বাংলাদেশের পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলায় চলে আসেন নিকি উল ফিয়া (২০) নামের এই তরুণী।

তবে প্রেমিক ইমরানের বিয়ের বয়স না হওয়ায় ব্যথিত হৃদয়ে দেশের মাটিতে ফিরে যাচ্ছেন প্রেমের টানে ছুটে আসা এই তরুণী। ইতোমধ্যে বিমানের টিকিটের জন্য ট্রাভেল এজেন্সির সঙ্গে কথাও বলেছেন তিনি।

জানা যায়, পেশায় শিক্ষক নিকি উল ফিয়ার বাড়ি ইন্দোনেশিয়ার সুরা বায়া বিভাগের জাওয়া গ্রামে। তার ভাষ্য, তিনি মুসলিম পরিবারের সন্তান। আর ইমরান হোসেনের বাড়ি বাউফলের দাসপাড়া ইউনিয়নের পুরান বাবুর্চি বাড়ি গ্রামে। তার বাবার নাম দেলোয়ার হোসেন। ইমরান পটুয়াখালী সরকারি কলেজের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষে পড়ছেন।

‘প্রায় এক বছর আগে ফেসবুকে ওই তরুণীর সঙ্গে পরিচয় হয় পটুয়াখালীর ইমরানের। শুরুতে নিকি উল ফিয়া এ দেশ, সংস্কৃতি ও তাদের পরিবার সম্পর্কে জেনে নিয়েছে। পরে ইমরানকে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেয়।

গত শুক্রবার রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান নিকি। সেখান থেকে তাকে বাড়ি নিয়ে যান ইমরান। নিকি উল ফিয়া সাংবাদিকদের জানান, ভালোবাসার টানেই তিনি বাংলাদেশে এসেছেন। বিষয়টি তিনি তাঁর মা-বাবাকে জানিয়েই বাংলাদেশে এসেছেন বলে দাবি করেছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, তরুণীর প্রেমিক ইমরানের ২১ বছর না হওয়ায় আইনি জটিলতা দেখা দেয়। এমন পরিস্থিতিতে স্বদেশে ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। তবে ইমরানের বিয়ের বয়স না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করবেন নিকি উল ফিয়া।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, প্রেমিকের বাড়িতে আসার পর নিকি যখন জানলেন, আইন অনুযায়ী প্রেমিক ইমরানের বিয়ের বয়স ২১ হয়নি। তখন তিনি হতাশ হয়ে পড়ে। তার হাস্যোজ্জ্বল মুখ মলিন হয়ে যায়। নিরবে চোখের পানিও ফেলেছেন তিনি। পরে স্বদেশে ফেরার সিদ্ধান্ত নেন নিকি।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে নিকি উল ফিয়া বলেন, ইমরানের বিয়ের বয়স না হওয়ার খবরটি জানার পর আমি ব্যথিত হই। ২-১ দিনের মধ্যে আমার দেশে চলে যাব। বিমানের টিকিটের জন্য ট্রাভেল এজেন্সির সঙ্গে কথা হয়েছে। তবে ইমরান ও তার পরিবারের সদস্যদের ব্যবহারে আমি মুগ্ধ। ইমরানের বিয়ের বয়স না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করব আমি। তার বিয়ের বয়স পূর্ণ হলে তখনই বিয়ে করব আমরা।

রবি