সোনালী, রূপালী ও জনতা ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষায় বাধা নেই

সময়ের কণ্ঠস্বর- সোনালী, রূপালী ও জনতা ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা হাইকোর্ট স্থগিত করলেও সেই আদেশ স্থগিত করেছেন চেম্বার বিচারপতি। ফলে শুক্রবার অনুষ্ঠেয় এই তিন ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা নিতে কোনো বাধা থাকল না।

বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষের করা এক আবেদনের শুনানি নিয়ে বৃহস্পতিবার চেম্বার বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন এ আদেশ দেন।

আদালতে ব্যাংকের পক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। রিট আবেদনকারীদের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট অন রেকর্ড জিয়াউর রহমান। সঙ্গে ছিলেন অ্যাডভোকেট রাশেদুল হক খোকন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটির সদস্যসচিব ও বাংলাদেশ ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক মোশাররফ হোসেন খান জানান, এই আদেশের ফলে ওই তিন ব্যাংকসহ আট ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা ১২ জানুয়ারি নির্ধারিত সময়ে হবে। তিন ব্যাংকের বিষয়ে হাইকোর্ট যে স্থগিতাদেশ দিয়েছিলেন তা তুলে নিয়ে আট ব্যাংকের পরীক্ষা একত্রে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। এ নিয়ে বিভ্রান্তির কোনো সুযোগ নেই, পরীক্ষা যথা সময়েই হবে।

এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি আজকের বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েব সাইটে পাওয়া যাবে বলে তিনি জানান।

২৮ জনের রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে ০৭ জানুয়ারি সোনালী, রূপালী ও জনতা ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার, অফিসার (জেনারেল) ও অফিসার (ক্যাশ) পদে নিয়োগের সব ধরনের কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দিয়েছিলো হাইকোর্ট।

ওইদিন রাশেদুল হক খোকন জানান, সোনালী ব্যাংক ২০১৬ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি ৭০১টি শূন্যপদের বিপরীতে অফিসার ক্যাটাগরির দু’টি পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়।

একই বছরের ২৬ জুলাই রুপালী ব্যাংক ৪২৩টি শূন্য পদে সিনিয়র অফিসার এবং ৩ আগস্ট ৭৩৬টি শূন্যপদে অ্যাসিস্ট্যান্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার পদের জন্য নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়।

কিন্তু এসব নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির নিয়োগ পরীক্ষা না নিয়ে গত বছরের ২৩ আগস্ট বাংলাদেশ ব্যাংক ৮টি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের এক হাজার ৬৬৩টি সিনিয়র অফিসার (সাধারণ) শূন্যপদের জন্য সমন্বিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়। একই বছরের ২৯ আগস্ট তিন হাজার ৪৬৩টি অফিসার (জেনারেল) শূন্যপদ এবং ৭ সেপ্টেম্বর দুই হাজার ২৪৬টি অফিসার (ক্যাশ) শূন্যপদের জন্য নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়। এসব নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির ভিত্তিতে ১২ জানুয়ারি (শুক্রবার) নিয়োগ পরীক্ষা হওয়ার কথা।

রাশেদুল হক আরও বলেন, এ অবস্থায় ২০১৬ সালের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী আবেদনকারীদের মধ্যে ২৮ জন গত বছর বাংলাদেশ ব্যাংকের সমন্বিত তিনটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি চ্যালেঞ্জ করে রিট দায়ের করেন।

রবি