কালকিনিতে যাত্রীবাহী বাস উল্টে খাদে পড়ে নিহত ১: আহত ১৫

পার্থ হালদার, গৌরনদী থেকে: মাদারীপুরের কালকিনি-ভূরঘাটা সড়কের লালপোল নামক স্থানে গতকাল শুক্রবার সকালে ঢাকাগামী সার্বিক পরিবহনের একটি যাত্রীবাস উল্টে খাদে পড়ে কাজী হাফিজ উদ্দিন (৬০) নিহত ও অন্তত ১৫ যাত্রী আহত হয়েছে।

নিহত কাজী হাফিজ উদ্দিন কালকিনি উপজেলার দক্ষিণ গোপালপুর গ্রামের মরহুম মহিউদ্দিন কাজীর ছেলে। গুরুতর আহত ৮ যাত্রীকে কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, কালকিনি থেকে ঢাকা যাওয়ার পথিমধ্যে লালপোল নামক স্থানে সার্বিক পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস একটি সাইকেল ও আরোহীকে বাঁচাতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাসটি সড়কের পাশের উল্টে খাদে পড়ে যায়।

এতে ঘটনাস্থলেই বাসযাত্রী কাজী হাফিজ উদ্দিন (৬০) নিহত ও ১৫ যাত্রী আহত হয়। গুরুতর আহত বাসযাত্রী কামাল (৩৫), আবু নাইম (৩২). জহিরুল ইসলাম (৩২), লিপি (২৫), আসমা(২২), সুবহান(৬৫). আলী আব্বাস(৪২), নাসির হাওলাদার(৪২), আমিরুল ইসলাম(২৪)কে কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

গৌরনদীতে খালের মধ্য থেকে শিশু উদ্ধার

বরিশালের গৌরনদীর বাটাজোর ইউনিয়নের পশ্চিম চন্দ্রহার এলাকায় খালের ভেতর কচুরিপানার ওপর থেকে ১৫/১৬ মাস বয়সের জীবিত এক শিশু পুত্রকে উদ্ধার করেছে এলাকাবাসী। গতকাল শুক্রবার দুপুরে উপজেলার পশ্চিম চন্দ্রহার গ্রামের বাটাজোর-আগরপুর খালের মধ্য থেকে শিশু পুত্রটিকে উদ্ধার করা হয়।

গৌরনদী মডেল থানার ওসি মনিরুল ইসলাম জানান, উপজেলার পশ্চিম চন্দ্রহার গ্রামের নজরুল সরদারের স্ত্রী লাইজু বেগম গতকাল শুক্রবার দুপুর দুইটার দিকে প্রতিবেশী মোসলেম ফকিরের বাড়ির কাছে খালের ভেতর কচুরিপানার উপর এক শিশুর কান্না শুনতে পান।

এ সময় লাইজু বেগম খালের ভেতর কচুরিপানার ওপর থেকে জীবিত অবস্থায় ১৫/১৬ মাস বয়সের একটি পুত্র সন্তানকে উদ্ধার করেন। নজরুল সরদার বিষয়টি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যকে অবহিত করলে তারা শিশুটিকে থানায় সোপর্দের পরামর্শ দেয়।

জনপ্রতিনিধিদের পরামর্শ অনুযায়ী নজরুল সরদার ও তার স্ত্রী লাইজু বেগম গতকাল সন্ধ্যায় শিশুটিকে থানায় সোপর্দ করেন। ওসি মনিরুল ইসলাম আরো জানান, শিশুটি সম্পর্ণ সুস্থ রয়েছে। তাকে দুধ পান করানো হয়েছে। শিশুটিকে সমাজ সেবায় হস্তান্তরের জন্য উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তাকে খবর দেয়া হয়েছে।

গৌরনদীতে গঁলায় ফাঁস দিয়ে দাখিল পরীক্ষার্থিনীর আত্মহত্যা

মা’য়ের বকাঝকা খেয়ে বৃহস্পতিবার রাতে বরিশালের গৌরনদী উপজেলার মাগুরা মাদারীপুর নেছারিয়া দাখিল মাদ্রাসার দাখিল পরীক্ষার্থী নুর-নাহার (১৬) গঁলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। সে উপজেলার মাগুরা মহুর্জারপাড় গ্রামের হাজী মজিবুর রহমান হাওলাদারের কন্যা। খবর পেয়ে থানা পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থলে পৌছে ছাত্রীর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য গতকাল শুক্রবার সকালে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছেন।

এ ব্যাপারে ছাত্রীর পিতা হাজী মজিবুর রহমান হাওলাদার বাদি হয়ে গতকাল শুক্রবার ভোররাতে গৌরনদী থানায় একটি অপমৃত্যু’র মামলা দায়ের করেন।
ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে গৌরনদী মডেল থানার এস.আই মোঃ শামচুউদ্দিন জানান, আগামী ১ ফেরুয়ারি দাখিল পরীক্ষা শুরু হবে।

পরীক্ষা ঘনিয়ে আসলেও দাখিল পরীক্ষার্থী নুরনাহার পড়াশুনা করছে না। তাই তার মা শেফালী বেগম (৫৫) বৃহস্পতিবার সকালে তার মেয়ে নুরনাহারকে বকাঝ্কা দেয়। এতে সে অভিমান করে বৃহস্পতিবার রাত ১০টা থেকে ১১টার মধ্যে যে কোন সময় তার (নুরনাহারের) শয়ন কক্ষে আধাপাকা ঘরের আড়ার সাথে ওড়না দিয়ে মাদ্রাসার পরীক্ষার্থী নুরনাহার গঁলায় ফাঁস দেয়।

বাড়ির পাশে ওয়াজ মাহফিল শোনে তার ভাই হাফেজ হামজালাল হাওলাদার রাত সাড়ে ১১টার দিকে বাড়ি ফিরে নুরনাহারের কক্ষে বৈদ্যুতিক বাতি জ্বলতে দেখে। তখন সে জানানার ফাঁক দিয়ে তাকিয়ে বোন নুরনাহারকে ঘরের আড়ার সাথে ঝুলতে দেখে ডাকচিৎকার দেয়।

ডাকচিৎকার শুনে প্রতিবেশী ছুটে এসে ঘরের ভেতর ঢুকে নুরনাহারকে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় জনৈক পল্লী চিকিৎসকের কাছে নেয়া হলে তাকে (নুরনাহার) মৃত ঘোষণা করেন।

খবর পেয়ে তিনি (এসআই শামচুউদ্দিন) সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে রাত সাড়ে ১২টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌছে নুরনাহারের মৃতদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। ময়নাতদন্তের জন্য ছাত্রীর লাশ গতকাল শুক্রবার সকালে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেন। নুরনাহার আত্মহত্যা করেছে বলে প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ ধারনা করেছে বলে এসআই শামচুউদ্দিন জানান।