আশুলিয়ায় স্বামীর পরকীয়ায় স্ত্রী খুন: স্বামী ও শ্বাশুড়ী পলাতক

নিজেস্ব প্রতিবেদক,সাভার: স্বামীর পরকীয়ার প্রতিবাদ করায় আশুলিয়ায় রুলিয়া আক্তার ওরফে ফালানি (২০) কে শ্বাসরোধে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে স্বামী-শ্বাশুড়ীর বিরুদ্ধে। ঘটনার পর থেকে স্বামী-শ্বাশুরী পলাতক রয়েছে। শনিবার সকালে আশুলিয়ার শিমুলিয়া ইউপি’র পশ্চিম গাজীবাড়ি এলাকায় গৃহবধূর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত রুলিয়া আক্তার আশুলিয়ার শিমুলিয়ার কালিকাপুর এলাকার দিনমজুর আউলাদ হোসেনের মেয়ে। পলাতক নাজমুল হোসেন শিমুলিয়ার পশ্চিম গাজীবাড়ি এলাকার দুবাই প্রবাসী নুরুল হক এর ছেলে।

নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসি সূত্রে জানা যায়, গত ৬ মাস আগে নিজেদের পছন্দমত পরিবারের সম্মতিতেই বিয়ে হয় তাদের। বিয়ের সময় নাজমুলকে নগদ ২০ হাজার টাকা ও দেড় ভরি স্বর্ণালঙ্কার দেওয়া হয় রুলিয়ার পরিবার থেকে। বিয়ের পর ৩মাস ভালই চলছিল তাদের।

পরে স্বামী নাজমুলের সাথে পরকীয়ার সম্পর্ক হয় পাশের বাড়ির তার এক ভাতিজীর সাথে। বিষয়টি তিন মাস ধরে চলতে থাকলেও শুক্রবার রুলিয়া জানতে পারে। পরে বিষয়টি নিয়ে স্বামী-স্ত্রী ও শ্বাশুড়ীর সাথে কথাকাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে স্বামী ও শ্বাশুড়ী মিলে তাকে গলা টিপে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।

হত্যার পর নিহতের বাবা আউলাদ হোসেনকে মুঠোফোনে জানায় তার মেয়ের খিচুনী হচ্ছে তারাতারি আসেন। পরে এসে জানতে পারেন তার মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে। অবস্থা বেগতিক দেখে রুলিয়ার স্বামী ও শ্বাশুড়ী কৌশলে পালিয়ে যায়।

পরেরদিন শনিবার সকালে পুলিশে খবর দেওয়া হয়। খবর পেয়ে সকালে আশুলিয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে মৃতদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন।

আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক আবুল কালাম আজাদ জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। নিহতের গলায় আঘাতের চিহৃ রয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।