অ্যাশেজ হারের শোধ নিচ্ছে ইংল্যান্ড

সময়ের কণ্ঠস্বর: অষ্ট্রেলিয়ার সদ্য সমাপ্ত অ্যাশেজ সিরিজে কোন প্রতিদ্বন্দ্বিতাই করতে পারেনি ইংল্যান্ড। নিজেদের চেনা কন্ডিশন পেয়ে পাচ টেস্ট সিরিজের চারটিই জিতে নেয় অষ্ট্রেলিয়া। আর একটি ম্যাচ বৃষ্টির কারণে ড্র হয়। কিন্তু একদিনের ম্যাচে এসে সম্পূর্ণ অচেনা ইংল্যান্ড। পাচ ম্যাচের প্রথম তিনটিতে জিতে সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে তারা।

প্রথম দুই ম্যাচে হেরে সিরিজে ফেরার আশায় চেনা উইকেটে রোববার সিডনিতে টস জিতে বল করার সিদ্ধান্ত নেন অজি অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ। তার সিদ্ধান্ত কাজেও লাগে। কামিন্স-হ্যাজলউডদের বোলিংয়ে ১০৭ রানে ৪ উইকেট হারায় ইংল্যান্ড। কিন্তু ত্রাতা হয়ে দাঁড়ান উইকেট কিপার-ব্যাটসম্যান জস বাটলার।

আর তাকে সঙ্গ দিলেন ক্রিস ওকর্স। বাটলার ৬টি চার এবং ৪টি ছয়ের সুবাদে ৮৩ বলে ১০০ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলেন। ক্রিস ওকর্সের ৩৬ বলে ৫৩ রানের ইনিংস সাজানো ছিলো ৫টি চার ও ২টি ওভার বাউন্ডারির মাধ্যমে। শেষমেষ নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ৩০২ রান সংগ্রহ করে ইংল্যান্ড।

জবাবে অষ্ট্রেলিয়ার শুরুটা ভালো হয়নি। দলের ২৪ রানে অষ্ট্রেলিয়ার ড্যাশিং ওপেনার ডেভিড ওর্য়ানার আউট হলে বিপদে পড়ে তারা। এরপরে ৪৪ এবং ১১৩ রানে যথাক্রমে ক্যামেরুন হোয়াইট এবং অ্যারন ফিঞ্চ আউট হলে বিপদেই পড়ে অজিরা।

কিন্তু অজি অধিনায়ক স্মিথ ও শর্ন মার্সের জুটিতে ঘুরে দাঁড়ায় তারা। স্মিথ ৪৫ রানে এবং মার্স ৫৫ রানে আউট হলে জয় কঠিন হয়ে পড়ে স্বাগতিকদের জন্য। শেষের দিকে স্টাইনিস ৫৬ ও টিম পেইন ৩১ রান করলেও জয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারেনি অজিরা। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৪ উইকেট হাতে রেখে ২৮৬ রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হয় স্মিথ বাহিনী।

ইংলিশরা ১৬ রানের জয়ের সুবাদে পাচ ম্যাচ সিরিজের দুইটি হাতে রেখেই সিরিজ নিশ্চিত করল। ক্যারিয়ারে পঞ্চম সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে ম্যান অব দ্যা ম্যাচের পুরস্কার উঠেছে জস বাটলারের হাতে। সিরিজের ৪র্থ এবং শেষ ওয়ানডে যথাক্রমে ২৬ ও ২৮ জানুয়ারি অ্যাডিলেডে ও পার্থে।

স্কোরকার্ড

ইংল্যান্ড: ৩০২/৬; জেসন রয়-১৯, জনি বেয়ারস্টো-৩৯, জো রুট-২৭, মরগান-৪১,বাটলার-১০০, ওর্কস-৫৩; হ্যাজলউড-৫৮/২

অষ্ট্রেলিয়া: ২৮৬/৬; অ্যারন ফিঞ্চ-৬২, ক্যামেরুন হোয়াইট-১৭, স্টিভ স্মিথ-৪৫, শন মার্স-৫৫, মারকাস স্টইনিস-৫৬, টিম পেইন-৩১; মার্ক উড-৪৬/২, ক্রিস ওর্কস-৫৭/২