ট্রাম্পবিরোধী নারীদের বিক্ষোভে হলিউড তারকারা

বিনোদন ডেস্কঃ

রাজকোষে তালা। এ দিকে বছর ঘুরতে না ঘুরতেই আবার প্রতিবাদ মিছিল। মিছিলের মুখ সেই মেয়েরাই। সম্ভ্রম আদায় নয়, লড়াইটা বরং তা ছিনিয়ে নেওয়ার। স্লোগান উঠেছে নারীর ক্ষমতায়ন আর অধিকার রক্ষার দাবিতেও। লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে শুরু করে নিউ ইয়র্ক, ফিলাডেলফিয়া- শনিবার দিনভর আমেরিকার অন্তত ২০০টি শহরে ফের স্লোগান উঠলো প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে।

‘নতুন প্রেসিডেন্টের হাতে আমেরিকা নিরাপদ নয়’- এমন একটা পরিবেশ তৈরি হয়েছিল ট্রাম্প হোয়াইট হাউসে পা রাখার দিনেই। ঐ সময় বিক্ষোভে এত বিপুল সংখ্যক মহিলার জমায়েত এর আগে কখনও দেখেনি আমেরিকা। শনিবারের চিত্রটা সেটাও ছাপিয়ে গেল। সাধারণ নারীদের সঙ্গে এবার লস অ্যাঞ্জেলেসের মিছিলে পা মেলালেন অ্যাডেল, নাতালি পোর্টম্যান, জেনিফার লরেন্স, ভিওলা ডাভিস, স্কারলেট জোহানসনের মতো হলিউড তারকারাও।

ট্রাম্প-জামানায় কতখানি আর কোথায় কোথায় বিপন্ন দেশ, এবার তাও স্পষ্ট হয়ে গেল প্ল্যাকার্ডে-স্লোগানে। প্রশ্ন উঠলো ট্রাম্পের অভিবাসন থেকে শুরু করে গর্ভপাত নীতি, এলজিবিটিদের অধিকার রক্ষায় প্রশাসনের উদাসীনতা নিয়েও।

ট্রাম্পবিরোধী মিছিলে এদিন মিশে গেল #মিটু-ও। সোশ্যাল মিডিয়ার উঠোন পেরিয়ে যৌন নিগ্রহের প্রতি জোরালো প্রতিবাদ শোনা গেল রাজপথ থেকে। সমাবেশের মঞ্চে দাঁড়িয়েই নাতালি পোর্টম্যান জানালেন, ১৩ বছর বয়সে প্রথম বার অভিনয়ের সময় থেকেই তিনি নিগ্রহের শিকার হলিউডে। ইদানীং যেন তা আরও ভয়াবহ আকার নিয়েছে। সমাজের মানসিকতায় তাই এবার যুগান্তকারী বদলের দাবি জানালেন অ্যাকাডেমি-পুরস্কারজয়ী অভিনেত্রী।

যাকে নিয়ে এত কিছু, সেই ট্রাম্প যদিও স্বমেজাজেই। কাউকে কোনও জবাবদিহি নয়, দিনের শেষে ট্রাম্প শুধু ছোট্ট একটা টুইট করেন- ‘‘মহান আমার দেশ। আমেরিকায় এখন দারুণ আবহাওয়া। মিছিলে অংশ নিতে চাওয়া সব নারীর কাছেই আজ যথার্থ একটা দিন।’’